গুগল ম্যাপে মোবাইল লোকেশন বের করুন ২ মিনিটে

এই আর্টিকেলে কিভাবে গুগল ম্যাপে মোবাইল লোকেশন বের করবেন সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। বর্তমান সময়ে একটি আধুনিক প্রোডাক্ট এর নাম হচ্ছে গুগল ম্যাপ এই গুগল ম্যাপের সাহায্যে আপনি পৃথিবীর যেকোন স্থানের লোকেশন বের করতে পারবেন এক মুহূর্তেই। অনেকেই জানতে চেয়ে থাকেন এই গুগল ম্যাপ কি এবং গুগল ম্যাপে মোবাইল লোকেশন বের উপায় কি তাই আপনিও যদি না জেনে থাকেন তাহলে পোস্টটি আপনার জন্য।
বর্তমান সময়ে গুগল হচ্ছে পৃথিবীর একটি জনপ্রিয় কোম্পানি শুধু তাই নয় ইন্টারনেটের অধিকাংশই অধিপত্য বিস্তার করে আছে এই গুগল কোম্পানি। আমাদের মধ্যে অনেকেই মোবাইল ব্যবহারকারী আছেন যারা জানতে চেয়ে থাকেন গুগল ম্যাপ কি এবং কিভাবে ব্যবহার করা হয় এছাড়া কিভাবে গুগল ম্যাপে মোবাইল লোকেশন বের করা যায় ইত্যাদি নানান ধরনের প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন আজকের এই আর্টিকেলে তাই গুগল ম্যাপ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হলে আজকের এই আর্টিকেল পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়তে থাকুন। 

    ভূমিকা

    এখন আমাদের প্রায় সবার হাতে হাতে স্মার্টফোন আর স্মার্টফোনের সময়ও আমরা অনেকেই অপরিচিত জায়গার ঠিকানা খুঁজে পাই না আর নতুন একটা জায়গায় কোন রুট ধরে যাব যেতে কতক্ষণ সময় লাগবে সেটা কত দূরে এবং রাস্তায় জ্যাম আছে কিনা এইসব ব্যাপারে কোন ধারণা পাই না এবং চিন্তায় পড়ে যাই অথচ হাতে থাকা স্মার্টফোনটাতেই আছে গুগল ম্যাপ যা ব্যবহার করে এ সকল প্রশ্নের উত্তর এবং সমাধান পাওয়া যায় আজকের এই আর্টিকেলে আপনি যদি গুগল ম্যাপ সম্পর্কে না জেনে থাকেন ব্যবহারবিধি ইত্যাদি তাহলে আমাদের সঙ্গেই থাকুন।

    গুগল ম্যাপ কি

    গুগল কোম্পানির একটি জনপ্রিয় সার্ভিস এর নাম হচ্ছে গুগল ম্যাপ শাকিহানা ভৌগোলিক তথ্য এবং সঠিক রাস্তা প্রদর্শনের এক ধরনের অ্যাপস। এই অ্যাপটির সাহায্যে আপনি খুব সহজেই এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তরে যেতে পারবেন এবং আপনি যদি কোথাও গিয়ে রাস্তা ভুলে গিয়ে থাকেন তাহলে এই গুগল ম্যাপের মাধ্যমে খুব সহজেই সঠিক রাস্তা বের করে নিতে পারবে শুধু তাই নয় এই অ্যাপস এর মাধ্যমে কোন স্থানের দূরত্ব কত এবং সে রাস্তায় ট্রাফিক জ্যাম আছে কিনা এবং আবহাওয়া কেমন সকল
    কিছু একসাথে দেখে নিতে পারবেন।


    এই গুগল ম্যাপ এ স্যাটেলাইট চিত্র, রাস্তার মানচিত্র ও রাস্তার ৩৬০°, সরাসরি ট্রাফিক পরিস্থিতি এবং পায়ে হেঁটে, গাড়িতে কিংবা বাইকে অথবা বিমানে পাবলিক ট্রান্সপোর্টে ভ্রমণের জন্য সঠিক রুট পরিকল্পনা প্রদান করে এর পাশাপাশি এক স্থান থেকে অপরিস্থানে যেতে কত মিনিট সময় লাগবে সেটাও বলে দেয়। 

    এই গুগল ম্যাপ অ্যাপসটি ২০০৫ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি মাসে চালু করা হয়েছে।আগস্ট ২০২৩ সালে এটি বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় স্মার্টফোনের অ্যাপস হিসাবে নির্ধারিত হয়েছিল বিশ্বের প্রায়ই ৫৪% শতাংশ বেশি স্মার্টফোন ব্যবহারকারী যারা ম্যাপ হিসেবে এটি ব্যবহার করে।

    গুগল ম্যাপে মোবাইল লোকেশন বের করবেন যেভাবে

    অনেকেই জানতে চেয়ে থাকেন যে মোবাইল ফোন হারিয়ে গেলে সেটাকে কোন ট্র্যাক করা যায় কিনা বা গেলে তার উপায় কি। মোবাইল ফোন হারিয়ে যেতে পারে বা আপনার ছেলে যদি হারিয়ে যায় তার সাথে একটি মোবাইল ফোন থাকে তো আপনার ছেলের অবস্থান জানবেন কিভাবে বা আপনার পরিবারের সদস্য বা বাচ্চার যেকোনো কিছু সেটা জানার জন্য কোন উপায় কি উত্তর হচ্ছে জি হ্যাঁ 

    আপনি আপনার ফোন দিয়ে খুব সহজেই গুগল ম্যাপে মোবাইল লোকেশন বের করতে পারবেন চলুন তাহলে কিভাবে আপনার প্রিয়জনের অথবা যে কারো গুগল ম্যাপের মাধ্যমে মোবাইল লোকেশন বের করবেন তা জেনে নেয়া যাক।

    ১. প্রথমে এই কাজটি করার জন্য আপনার ফোনে এবং প্রিয়জন অথবা আপনি যার লোকেশন বের করতে চাচ্ছেন তার ফোনে কিছু সেটিং করতে হবে। প্রথমে আপনার ফোন এবং প্রিয়জনের অর্থাৎ যার লোকেশন বের করতে চাচ্ছেন তার ফোনে যদি গুগল ম্যাপস নামক অ্যাপটি যদি না থেকে থাকে তাহলে প্লে স্টোর থেকে ইন্সটল করে ফেলুন দুইটি ফোনেই।

    ২. তারপর আপনার ফোনটিতে গুগল ম্যাপটি ওপেন করুন তারপর আপনার জিমেইল একাউন্ট টি দিয়ে সাইন ইন করে ফেলুন সাইন ইন করার পর কর্নারে দেখতে পারবেন আপনার জিমেইল আইকন সেটির উপর একবার ক্লিক করুন তারপর নিচে দেখতে পাবেন লোকেশন শেয়ারিং নামে একটি অপশন রয়েছে সেটিতে ক্লিক করুন। যদি না বুঝে থাকেন আপনার সুবিধার্থে নিচে একটি ছবি দেওয়া হল।


    ৩. লোকেশন শেয়ারিং অপশনটিতে ক্লিক করার পর নিচে শেয়ার লোকেশন একটি অপশন পাবেন সেটিতে ক্লিক করুন তারপর ২টি অপশন দেখতে পারবেন প্রথম অপশনটির অর্থ হচ্ছে আপনি ১ ঘন্টার জন্য প্রিয়জনের লোকেশন অর্থাৎ যার লোকেশন বের করতে চাচ্ছেন তার লোকেশন দেখতে পারবেন এক ঘন্টা পর্যন্ত আর নিচে আরেকটি অপশন দেখতে পাচ্ছেন Untill you turn this off এর অর্থ হচ্ছে তিনি যতক্ষণ না ডাটা অফ করবে ততক্ষণ পর্যন্ত আপনি তার লোকেশন দেখতে পারবেন.


    ৪. তো আপনি যদি অনেকক্ষণ তার লোকেশন দেখতে চান সেজন্য নিজের অপশনটি সিলেক্ট করতে হবে আর যদি শুধুমাত্র এক ঘন্টার জন্য দেখতে চান তাহলে উপরে একটি সিলেক্ট করতে পারেন। তারপর নিচে আপনি লক্ষ্য করবেন লোকেশনটি আপনি কার সাথে শেয়ার করবেন সেটি দেখাবে তো আপনি আলতো চাপ দিয়ে ছবিগুলোকে সাইডে সরিয়ে একটি more অপশন দেখতে পারবেন সেটিতে ক্লিক করবেন। 

    ৫. তারপর নাম্বার অথবা ইমেইল দিতে পারেন তবে আপনি আপনার যেই ফোন দিয়ে লোকেশন বের করতে চাচ্ছেন সেই ফোনের ইমেইল অথবা ফোন নাম্বারের মাধ্যমে লোকেশন শেয়ার করতে পারবেন আমি বলব আপনি আপনার ইমেইলের মাধ্যমে লোকেশনটি শেয়ার করবেন। তারপর লোকেশন টি শেয়ার করার পর আপনি যে মেইলে মেইল করছেন সেই ফোনটিতে মেইল ইনবক্সে গিয়ে চেক করবেন দেখবেন একটি মেইল এসেছে।


    ৬. তারপর ভিউ অন গুগল ম্যাপস এই অপশনটিতে ক্লিক করবেন তারপর দেখবেন আপনাকে গুগল ম্যাপসে নিয়ে যাবে তারপর আপনি দেখতে পারবেন আপনার প্রিয়জন অর্থাৎ যার লোকেশন বের করতে চাচ্ছিলেন তার লোকেশনটি শো করবে তো আশা করি কিভাবে গুগল ম্যাপে মোবাইল লোকেশন বের করে তা বুঝতে পেরেছেন।

    গুগল ম্যাপ ব্যবহারের নিয়ম

    আমাদের মধ্যে অনেকে আছেন যারা গুগল ম্যাপ কিভাবে ব্যবহার করতে হয় তা জানেন না তাই নিচে গুগল ম্যাপ ব্যবহার করার নিয়ম গুলি উল্লেখ করা হলো।
    1. প্রথমে গুগল ম্যাপটি আপনার ফোন থেকে ওপেন করুন তারপর আপনার যদি জিমেইল অ্যাকাউন্ট না খোলা থাকে তাহলে একটি জিমেইল একাউন্ট খুলে গুগল ম্যাপে সাইন ইন করুন।
    2. জিমেইল একাউন্টে লগইন করার পর কর্নারে আপনার জিমেইল একাউন্টে প্রোফাইলের উপর ক্লিক করুন তারপর Setting অপশন এ ক্লিক করুন।
    3. সেটিং এ ঢোকার পর উপরে দেখতে পাবেন App language সেখানে ক্লিক করুন তারপর আপনি বিভিন্ন ল্যাঙ্গুয়েজ দেখতে পাবেন আপনি যেই ল্যাঙ্গুয়েজটি বুঝতে পারেন সেই ল্যাঙ্গুয়েজটি সিলেট করবেন।
    4. তারপরে আবারো সেটিং এ আসবেন নিচে মিস কল করবেন দেখতে পাবেন Distance units লেখা আছে সেখানে ক্লিক করুন। আমাদের দেশে যেহেতু ডিস্টেন্স বোঝাতে কিলোমিটারস বলে থাকি আপনাদের দেশে যদি মাইলস হয়ে থাকে তাহলে মাইলস সিলেট করতে পারেন আর যদি কিলোমিটার হয়ে থাকে তাহলে কিলোমিটার সিলেট করতে পারেন।
    5. তারপরে আবারো সেটিং এ গিয়ে নিচে Show scale on map দেখতে পাবেন সেখানে ক্লিক করুন তারপর দুইটি অপশন দেখতে পাবেন সেখানে Zoming out অপশনটি সিলেক্ট করে রাখবেন।
    6. তারপরে আবারো সেটিং এ গিয়ে তার নিচে দেখবেন Navigation Setting সেখানে ক্লিক দিবেন তারপর দেখতে পারবেন সাউন্ড এন্ড ভয়েস সেখানে নরমাল সিলেক্ট করে রাখবেন কিন্তু আপনি যদি অনেক নয়েজ জনিত পরিবেশে এই গুগল ম্যাপ ব্যবহার করেন তাহলে লাউডার সিলেট করে দিবেন। তারপর নিচে দেখবেন ভয়ে সিলেকশন সেখানে বাংলা সিলেট করে নিবেন।
    7. এই হল গুগল ম্যাপের সেটিং এবার আপনাকে গুগল ম্যাপের হোম স্ক্রিনে ফিরে যেতে হবে। আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ সেটিং সেটা হচ্ছে আপনার ফোনের লোকেশন অর্থাৎ জিপিএস অপশনটি অন করে নিবেন এবং ডাটা অথবা ওয়াইফাই চালু রাখবেন।
    8. তারপর গুগল ম্যাপের মধ্যে যে গোল চিহ্ন ব্লু ডটটা দেখ দেখছেন সেটি আপনার লোকেশন। তারপর ওপরে লক্ষ্য করবেন একটি শেয়ার অপশন আছে সেখানে আপনি যে জায়গায় যেতে চাচ্ছেন সেখানকার নাম দিতে হবে তাহলে আপনি দেখতে পারবেন সেখান থেকে আপনার দূরত্ব কত দূর এবং পায়ে হেঁটে কতক্ষণ সময় লাগবে এবং সেই রাস্তায় ট্রাফিক জ্যাম আছে কিনা সবকিছু দেখতে পারবেন। এই হল গুগল ম্যাপ ব্যবহার করার নিয়ম আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

    কিভাবে গুগল ম্যাপে ঠিকানা যোগ করব

    আপনার নিজের বাড়ি অথবা আপনার নিজের প্রতিষ্ঠান এর ঠিকানা আপনার হাতে থাকা স্মার্টফোন দিয়ে গুগল ম্যাপে ঠিকানা যুক্ত করতে পারবেন। অনেকেই ভাবেন যে অনেক বড় প্রতিষ্ঠান হলে গুগল নিজ থেকেই ঠিকানা নিয়ে অ্যাড করে নেয় এটি একটি ভুল ধারণা এটি আপনাকে সম্পন্ন নিজে সেট করতে হবে চলুন তাহলে কিভাবে গুগল ম্যাপে ঠিকানা যোগ করবেন সেটি জেনে নেওয়া যাক। 
    • প্রথমে আপনাকে গুগল ম্যাপ টি ওপেন করতে হবে তারপরে নিচে Contribute লেখা রয়েছে সেখানে ক্লিক করুন তারপর নতুন আরেকটি অপশনে নিয়ে যাবে সেখানে দেখতে পাবেন Add place ওইটার উপর ক্লিক করুন।
    • তারপরে অনেকগুলো খালিঘর দেখতে পাবেন যেখানে কিছু ইনফরমেশন দিতে হবে প্রথমেই আপনাকে জায়গার নাম দিতে হবে যে জায়গাটি আপনি ঠিকানা দিতে চাচ্ছেন বাড়ি অথবা প্রতিষ্ঠান তারপর সেই বাড়ি অথবা প্রতিষ্ঠানের ক্যাটাগরি দিতে হবে।
    • তারপরে মূল বিষয় হচ্ছে এড্রেস যুক্ত করা। আপনারা যেই বাড়ি অথবা প্রতিষ্ঠান যুক্ত করতে চাচ্ছেন সেখানে বসে এই কাজটা করা তাহলে আপনার জন্য খুবই সুবিধা হবে। অ্যাড্রেসে খালি ঘরে সাইডে দেখবেন একটি গোল চিহ্ন দেওয়া আছে সেখানে ক্লিক দেয়ার পর অটোমেটিক আপনার লোকেশন টা বসে যাবে। আর যদি আপনি সেই লোকেশনে না থাকেন তাহলে আপনাকে হাতে টাইপ করে সেই লোকেশন টা সঠিক ভাবে বসাতে হবে।
    • এড্রেসটি সঠিকভাবে দেয়ার পর নিচে স্ক্রলিং করে Add more details অপশনটি দেখতে পাবেন সেখানে ক্লিক করুন। প্রথমে দেখতে পাবেন Hour অপশনটি এর অর্থ হচ্ছে আপনার যদি কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হয়ে থাকে সে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান কয়টা থেকে কয়টা পর্যন্ত খোলা থাকবে সেটি সিলেক্ট করবেন আর যদি ব্যবসা কোন প্রতিষ্ঠান না হয়ে থাকে তাহলে দেওয়া লাগবে না।
    • তারপর Contact লেখা অপশনটি দেখতে পাবেন সেখানে আপনার ফোন নাম্বার এবং আপনার যদি ওয়েবসাইট থেকে থাকে তাহলে সেই ওয়েবসাইটে লিংকটি দিতে পারবেন।
    • তার পরে দেখবেন About সেকশন এর অর্থ হচ্ছে আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান অথবা বাড়ি হয়ে থাকে তাহলে সেটি কবে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন সেই ডেট দিয়ে দিবেন এবং নিচে Add Photo অপশনটি দেখতে পাবেন সেখানে ক্লিক করে আপনার বাড়ির অথবা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ছবিটি বসিয়ে দিয়ে সাবমিট বাটনে ক্লিক করে দিলেই আপনার ঠিকানা গুগল ম্যাপে যুক্ত হয়ে যাবে।

    গুগল ম্যাপ ডাউনলোড

    অ্যাপস কোন জায়গা নেভিগেট করতে কিংবা কোন জায়গা খুঁজে বের করতে এর কোন বিকল্প নেই আর এই গুগল ম্যাপস ব্যবহার করতে গেলে কিন্তু ইন্টারনেট কানেকশনের দরকার হয় এটা আপনারা সবাই জানেন আজকের আর্টিকেলে যে ট্রিক্সটা দেখাবো এটা এপ্লাই করলে আপনি ইন্টারনেট কানেকশন ছাড়াই গুগল ম্যাপ ব্যবহার করতে পারবেন এবং এটা দিয়ে নেভিগেটও করতে পারবেন। চলুন তাহলে কিভাবে গুগল ম্যাপ ডাউনলোড করতে হয় সেটি জেনে নেওয়া যাক।


    প্রথমে আপনার ফোনে যদি গুগল ম্যাপ না থেকে থাকে তাহলে গুগল প্লে স্টোর থেকে ইন্সটল করে আপনার জিমেইল একাউন্টটি দিয়ে সাইনিং করে নিন।

    তারপর আপনার ফোনে থাকা গুগল ম্যাপটি ওপেন করুন তারপর কন্যারে আপনার জিমেইলের প্রোফাইল এর উপর ক্লিক করুন।

    তারপরে নিচের দিকে একটি অপশন দেখতে পাবেন Offline Maps সেখানে ক্লিক করুন। তারপরে আরেকটি অপশন দেখতে পাবেন Select your own maps সেখানে ক্লিক করুন তারপর আপনি যেই লোকেশন এর ম্যাপটা ডাউনলোড করতে চাচ্ছেন সেই জায়গাটি নীল বর্ডার দিয়ে সিলেট করে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

    আমাদের শেষ কথা

    আজকের এই আর্টিকেলে আপনাদের জানিয়েছি কিভাবে গুগল ম্যাপে মোবাইল লোকেশন বের করবেন খুব সহজেই আশা করি আপনি এই পোস্টটি পড়ে সম্পূর্ণ বুঝতে পেরেছেন এর পাশাপাশি আপনাদেরকে গুগল ম্যাপ ব্যবহারের নিয়ম ও কিভাবে গুগল ম্যাপে ঠিকানা যোগ করবেন সেটাও জানিয়েছি।

    আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন যদি কোন কিছু না বুঝে থাকেন তাহলে নিচে কমেন্ট করতে পারেন। এই আর্টিকেল পোস্টটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অন্যদের সাথে শেয়ার করে দিবেন এবং এইরকম বিভিন্ন তথ্য পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটিতে চোখ রাখতে পারেন। ধন্যবাদ।

    এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

    পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
    এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
    মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

    Edu 360 BD নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

    comment url