গর্ভাবস্থায় বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে ও ছেলে সন্তান লক্ষণ

প্রিয় পাঠক এই আর্টিকেল পর্বে গর্ভাবস্থায় বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে ও ছেলে সন্তান হওয়ার লক্ষণ সমূহ সম্পর্কে আলোচনা করব। কোন মেয়ে যখন প্রথমবার গর্ভবতী হয় তার মনের মধ্যে অনেক প্রশ্ন ঘুরপাক খেতে থাকে যেমন বাচ্চা পেটের ভিতর কিভাবে থাকে, বাচ্চা ডান পাশে নড়াচড়া করলে কি হয় ইত্যাদি তাই এই পোস্টে গর্ভাবস্থায় বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে ও ছেলে সন্তান লক্ষণ সম্পর্কে আলোচনা করব।
আপনি যদি একজন গর্ভবতী মা হয়ে থাকেন কিন্তু গর্ভাবস্থায় বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে তা জেনে না থাকেন তাহলে আপনার জন্য জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ পড়েন তাহলে ছেলে সন্তান হওয়ার লক্ষণ সমূহ এবং গর্ভাবস্থায় বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে এর পাশাপাশি গর্ভাবস্থায় খালি পেটে থাকলে কি হয় এরকম বিভিন্ন রকমের প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন এই আর্টিকেলে।
পোস্ট সূচিপত্রঃ

ভূমিকা

একজন নারী যখন প্রথম গর্ভবতী হয় তখন তার মনের মধ্যে অনেক পরিকল্পনা তৈরি হয়। একজন বাচ্চা কখনোই এক সপ্তাহ কিংবা ১০ দিনে বড় হয় না কোন নারী যখন গর্ভবতী হয় তখন তার পেটের ভিতর বাচ্চা আস্তে আস্তে বড় হতে থাকে। যখন বাচ্চাটি আস্তে আস্তে বড় হতে থাকে আকার বৃদ্ধি পেতে থাকে তখন একজন মা সেটি বুঝতে পারে। কিন্তু অনেক মেয়ে রয়েছে যারা নতুন বিবাহিত করেছেন কিংবা গর্ভবতী হতে যাচ্ছেন।

তাদের মধ্যে অনেকে রয়েছে যারা গর্ভাবস্থায় বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে তা জানে না। প্রথমে বাচ্চা বীজ পজিশনে থাকে তারপর দ্বিতীয় সপ্তাহে আড়াআড়ি পজিশনে থাকে এবং তৃতীয় সপ্তাহে পশ্চাৎপদ পজিশন থাকে আশা করি আপনি একটু ধারণা পেয়েছেন গর্ভা বস্থায় বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে। এবার চলুন বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক গর্ভাবস্থায় বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে।

গর্ভাবস্থায় বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে

কোন মহিলা যখন গর্ভধারণ করে তখন তার শরীরে বিভিন্ন রকম পরিবর্তন দেখা যায় সেইসাথে একজন নারী যখন প্রথমবার গর্ভধারণ করে তখন তার মনের মধ্যে অনেক প্রশ্ন জাগে যেমনঃ গর্ভাবস্থায় বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে অথবা ছেলে বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে ও ছেলে সন্তান হওয়ার লক্ষণ সমূহ কি ইত্যাদি।

একজন মহিলা যখন গর্ভধারণ করে তখন যত দিন যায় তত তার গর্ভে সন্তানের সাথে সাথে মায়েরও শরীরে বিভিন্ন পরিবর্তন হতে থাকে যার কারণে গর্ভের বাচ্চা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন অবস্থানে থাকে।কখনো বাচ্চা ডান পাশে থাকে অথবা কখনো বাচ্চা বাম পাশে থাকে অথবা কখনো বাচ্চা নড়াচড়া করে ইত্যাদি তাই নির্দিষ্ট ভাবে গর্ভাবস্থায় বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে বলা প্রায় অসম্ভব।
বিশেষজ্ঞদের মতে গর্ভাবস্থায় বাচ্চার তিনটি পজিশনে পরিবর্তন করে থাকে। প্রথমত শীর্ষবিন্দু পজিশন এবং দ্বিতীয়ত শীর্ষবিন্দু অবস্থানে এবং শেষে বাচ্চা যে অবস্থানে থাকে সেটি হচ্ছে বিভিন্ন অঙ্গ পতঙ্গে।বিশেষ করে বাচ্চার হাত ও পা পেটের সামনের দিকে থাকে যা দিয়ে মায়ের পেটে স্পর্শ করে এবং মা সেটা টের পাই।

তবে গর্ব অবস্থায় প্রথমের দিকে বাচ্চা সাধারণত পেটের মাঝখানে অবস্থান করে এরপর বাচ্চা যখন আস্তে আস্তে বড় হয় তখন বাচ্চা নিজে নিজেই পেটের ভিতর বিভিন্ন জায়গায় নড়াচড়া করে অবস্থান করে যার ফলে বলা যায় বাচ্চা পেটের বাম পাশে এবং ডান পাশে উভয় পাশে থাকে।

গর্ভাবস্থায় ছেলে বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে

আমরা গর্ভের বাচ্চা ছেলে হবে নাকি মেয়ে হবে তা জানতে বেশ কৌতুহলী হয়ে উঠি। আল্ট্রাসনোগ্রাম বা কোন পরীক্ষা ছাড়াই বা পরীক্ষা করার সময় হওয়ার আগেই জানতে খুব ইচ্ছে করে গর্ভের বেড়ে ওঠা সন্তানটি ছেলে নাকি মেয়ে। প্রচলিত কিছু ধারণা থেকে আপনি এ সম্পর্কে একটা আইডিয়া নিতে পারবেন কেননা প্রচলিত ধারণা বা কুসংস্কার গুলোর গ্রহণযোগ্যতা নেহায়েত কম নয়।

প্রায় ৬০ থেকে ৭০% মানুষের বেলায় সঠিক ফল দেয় যদিও এর কোন বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই এটা অনেক পুরনো দাইমাদের গল্প। চলুন তাহলে গর্ভাবস্থায় বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে এবং গর্ভাবস্থায় মেয়ে বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে এর প্রচলিত ধারণা এবং বিজ্ঞান কি বলে সে সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।
  • আপনার গর্ভে যদি ছেলে বাচ্চা থাকে তাহলে ভুড়িটা নিচের দিকে ঝুলে যাবে।
  • যদি একটু নিচের দিকে হয়ে গোল একটা বলের আকারে ফুলতে থাকে তাহলে ভাবী সন্তান ছেলে হয়।
  • আপনার পেটটি দেখতে কেমন লাগছে বাস্কেটবলের মত না তরমুজের মত যদি সেটা বাস্কেটবলের মত দেখায় সেটা লক্ষণ ছেলে সন্তানের।
  • গর্ভাবস্থায় পেট যদি কম ভারী অনুভূতি হয় তাহলে ছেলে সন্তান হবে।
  •  আর যদি সমস্ত পেটজুড়ে বা বামদিকে অনুভূত হয় তাহলে ছেলে হবে।
বিজ্ঞান যেটা বলেঃ আসলে সত্যিটা কি? গর্ভাবস্থায় পেটের আকার কেমন হবে সেটা সম্পূর্ণ নির্ভর করে কয়েকটি বিষয়ের উপর যেমনঃ 
  • মায়ের পেটের পেশী 
  • পেশী দৃঢ়তা 
  • মায়ের পেটের আকারের উপর 
  • গর্ভস্থ সন্তানের আকার মায়ের শারীরিক গঠন 
  • মায়ের গর্ভের সন্তানের অবস্থান 
  • ইউটেরাসে কতটা ফ্লুইড আছে
উপরে উল্লেখিত এগুলার ওপর মূলত গর্ভাবস্থায় পেটের আকার কেমন হয় তা নির্ধারিত হয়ে থাকে। যারা আগে মা হয়ে গিয়েছেন তাদের ক্ষেত্রে দেখা যায় যে পেট নিচের দিকে এসেই ফুলে ওঠে এর কারণ তাদের পেটের পেশি আগে থেকেই শিথিল হয়ে আছে।

গর্ভাবস্থায় মেয়ে বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে

অনেকেই জানতে চেয়ে থাকে তার গর্ভের বাচ্চা যদি মেয়ে বাচ্চা হয় তাহলে পেটের কোন পাশে থাকবে। কারণ অনেকেই জানতে চাই গর্ভে বাচ্চা থাকাকালীন মেয়ে বাচ্চা নাকি ছেলে বাচ্চা। উপরের অংশে ইতিমধ্যে আপনাদের জানিয়েছি গর্ভাবস্থায় ছেলে বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে। চলুন তাহলে
গর্ভাবস্থায় মেয়ে বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে জেনে নেওয়া যাক যদিও এটি আগে যুগের মানুষের কথা আর এই কথায় কোন বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা নেই।
  • যদি আপনার গর্বের বাচ্চাটা কন্যা হয় তাহলে উপরের দিকে ভুড়িটা বেশি হয়।
  • আবার যদি হবু মায়ের পেট বেশ ছড়িয়ে প্রায় পেটের পুরো অংশ নিয়েই ফুলে ওঠে তাহলে গর্ভের সন্তান মেয়ে হয়।
  • যদি আপনার পেট দেখায় তরমুজের মতো তাহলে সেটা হতে পারে কন্যা সন্তানের লক্ষণ।
  • গর্ভাবস্থায় পেট বেশি ভারী মনে হলে মেয়ে শিশু হবে।
  • শিশুটি যদি পেটের ডান দিকে আছে বলে মনে হয় তাহলে মেয়ে হবে।
আর যদি আপনি এই আগে যুগের মানুষের কথা বিশ্বাস না করেন তাহলে আপনি আল্ট্রাসনোগ্রাম পরীক্ষা করে খুব সহজেই জেনে নিতে পারবেন আপনার গর্ভে বাচ্চাটি মেয়ে বাচ্চা নাকি ছেলে বাচ্চা এবং আপনার মেয়ে বাচ্চা পেটের কোন পাশে রয়েছে বিস্তারিত ডাক্তারের কাছ থেকে জেনে নিতে পারবেন।

গর্ভাবস্থায় কত মাসে পেট বড় হয়

প্রায় অধিকাংশ গর্ভবতী মহিলারাই কিন্তু পেটের আকার নিয়ে চিন্তিত থাকে এখনো কেন পেট বড় হচ্ছে না বা কেন দেখা যাচ্ছে না অথবা গর্ভাবস্থায় কত মাসে পেট বড় হয় এই রকম নানান প্রশ্ন সবার মাথায় ঘুরতে থাকে। গর্ভবতী হওয়ার পর থেকেই কিন্তু আত্মীয়-স্বজন বন্ধু-বান্ধব সবাই কিন্তু তাদের মন্তব্য কিন্তু আপনাদের সাথে শেয়ার করেন যে তাদের গর্ভাবস্থায় পেট কত মাস থেকে কিরকম পেট বড় হয়েছিল।

গর্ভাবস্থায় কিন্তু পেটের আকার কিছু যায় আসে না বা চিন্তার কোন কারণ নেই যতক্ষণ না আপনার ওজন বৃদ্ধি পাচ্ছে বা পেট স্থুল হয়ে আসছে ততক্ষণ কিন্তু আপনার এই বিষয়ে চিন্তা কোন কারণ নেই তার সাথে অনেকের মাথায় এটাও ঘটতে থাকে যে ঠিক কবে থেকে পেট দেখা যাবে বা পেট বড় হবে।

গর্ভাবস্থায় কত মাসে পেট বড় হবে তা কিন্তু শতভাগ নিশ্চিত হয়ে বলা যায় না কারণ প্রত্যেকেরই শরীর এবং শরীরের গঠন কিন্তু আলাদা কিন্তু এটা মানা হয় যে গর্ভবতীদের কিন্তু ৫ মাসের পর থেকেই কিন্তু পেট একটু বড় হতে শুরু করে। কোন কোন গর্ভবতী মায়েদের ক্ষেত্রে কিন্তু এটাও দেখা যায় যে প্রথম ৩ মাসে বাড়ে আবার মাঝখানে ৩ মাসে কিন্তু পেট বাড়তে দেখা যায় না।

কিছু কিছু গর্ভবতী মায়েদের ক্ষেত্রে হয় কি যে প্রেগনেন্সি টেস্ট করানো কিছুদিন পর থেকেই পেটে কিন্তু ফোলা ভাব দেখানো যায় এর কিন্তু অন্য কিছু কারণও হতে পারে যেমনঃ পেটে ফোলা ভাব, পেটে গ্যাস হওয়া, কোষ্ঠকাঠিন্য এবং যমজ সন্তান থাকলেও কিন্তু এরকমটা হতে পারে। কিন্তু প্রথমবার যারা মা হতে চলেছেন তাদের ক্ষেত্রে কিন্তু ১২ থেকে ১৬ সপ্তাহের মধ্যে কিন্তু পেট অল্প অল্প বাড়তে শুরু করে দেয়।

গর্ভাবস্থায় খালি পেটে থাকলে কি হয়

গর্ভাবস্থায় না খেয়ে থাকলে শরীরের অনেক ক্ষতি হয়। এই সময় স্বাভাবিক বিকাশের জন্য সময় ও পরিমাণমতো পুষ্টিকর খাবার খাওয়া প্রত্যেকেরই জরুরি। এই সময় খাবার ঠিক সময় মত খাওয়া উচিত। একবেলা না খেলে গর্ভস্থ শিশুর পুষ্টির ঘাটতে দেখা যায় এবং বাচ্চা ক্ষতি হতে পারে। গর্ভাবস্থায় না খেয়ে থাকলে বা একবেলা উপোষ থাকলে এতে শরীরের শক্তি কমে যেতে পারে এবং দুর্বল হয়ে যেতে পারেন।
গর্ভাবস্থায় খালি পেটে থাকলে আয়রণ ও হিমোগ্লোবিনের ঘাটতি দেখা দিতে পারে। অথবা আপনি যদি গর্ভাবস্থায় এক বেলা না খেয়ে থাকেন তাহলে আপনার ওজন অনেকটাই কমে যাবে। টানা ২৪ ঘন্টা না খেয়ে থাকলে সবচেয়ে বড় যে ঝুঁকি তৈরি হতে পারে। গর্ভাবস্থায় জল কম খেলে গর্ভস্থ সন্তানের পুষ্টি অক্সিজেন ও পুষ্টি সরবরাহের অভাব থেকে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

এর ফলে কম ওজন সন্তান জন্ম নেওয়ার ঝুঁকি তৈরি হতে পারে তাই গর্ভাবস্থায় শুরু থেকে শেষ অব্দি না খেয়ে থাকবেন না এতে গর্ভস্থ শিশুর ক্ষতি হবে। যদি আপনাদের খেতে ইচ্ছে না করে তাহলে শুকনো ফল খান এতেও অনেকটা উপকার পাবেন। শুকনো ফলের মধ্যে রয়েছে যেমনঃ কাজু, কিসমিস, বাদাম, আপেল, আঙ্গুর ইত্যাদি।

বাচ্চা ডান পাশে নড়াচড়া করলে কি হয়

গর্ভাবস্থায় স্বাভাবিকভাবে একটি বাচ্চা ২৪ ঘন্টায় ১০ থেকে ১২ বার নাড়াচড়া করাটাই স্বাভাবিক। কিন্তু কোন কোন ক্ষেত্রে দেখা যায় যে বাচ্চা নির্দিষ্ট সময়ে অনেকক্ষণ ঘুমিয়ে থাকছে যার কারনে সে নড়াচড়া করছে না। কিন্তু অনেক সময় দেখা যায় যে টানা অনেক নড়াচড়া করছে এতে আসলে ভয় পাওয়ার কিছুই নেই। এমন যদি হয় বাচ্চাটা এক টানাই ১০ বার নড়ে গেল তাহলেও চিন্তিত হওয়ার কিছুই নেই।

বাচ্চা যদি স্বাভাবিকের চাইতে বেশি নড়াচড়া করে তাহলে অস্বাভাবিক কিছুই নয়। অনেকে আবার জানতে চেয়ে থাকেন বাচ্চা ডান পাশে নড়াচড়া করলে কি হয়। বাচ্চার ডান পাশে কিংবা বাম পাশে নড়াচড়া করলে কিছুই হয় না। বাচ্চা গর্ভ অবস্থায় এদিক সেদিক নড়াচড়া করবে এটি স্বাভাবিক। যদি বাচ্চা একদমই নড়াচড়া না করে তাহলে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা উচিত।

ছেলে সন্তান হওয়ার লক্ষণ সমূহ

নিজের শরীরে একটা প্রাণের তিলে তিলে বেড়ে ওঠার মতো অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করতে পারেন না অনেক হবু মায়েই ভয় আনন্দ উৎকণ্ঠ মিলিয়ে এক মিশ্র অনুভূতি কাজ করে সকলের মধ্যে সঙ্গে থাকে একটা জিনিস জানার কৌতূহল গর্ভের সন্তান ছেলে না মেয়ে। মা খালাদের দেওয়া টোটকা দিয়ে খুব সহজেই আপনি বুঝতে পারবেন ছেলে নাকি কন্যা সন্তানের জননী হতে চলেছেন আপনি। চলুন তাহলে ছেলে সন্তান হওয়ার লক্ষণ সমূহ জেনে নেওয়া যাক।
  • পেটের আকারঃ আপনার পেট যদি দেখেন নীচের দিকে বেশি ঝুঁকে গেছে তাহলে বুঝবেন আপনার ছেলে সন্তানের হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
  • ইউরিণের রংঃ অনেক গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে গর্ভ অবস্থায় মায়ের প্রসবের রঙ যদি হলদে গারো হয় বুঝতে হবে ছেলে সন্তান হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।
  • ব্রেস্টের মাপঃ গর্ভাবস্থায় মায়ের ব্রেস্টের মাপ এমনিতেই বেড়ে যায় কারণ এই সময় মায়ের শরীরে দুধের পরিমাণ বাড়তে থাকে। সাধারণত এই সময় ডান দিকের থেকে বাঁদিকের ব্রেস্ট একটু বেশি ভারী হয় তবে আপনার ক্ষেত্রে যদি উল্টো ঘটনাটা ঘটে তাহলে নিশ্চিত থাকুন আপনার ছেলে হতে চলেছে।
  • পায়ের পাতা ঠান্ডা হয়ে যাওয়াঃ এমন ধরনের লক্ষণে বহিঃপ্রকাশ ঘটলে মনে সন্দেহ রাখবেন যে ছেলে সন্তানের জন্ম হতে চলেছে।
  • হার্টের রেট ওঠা নামাঃ গর্ভাবস্থায় প্রায়শই চিকিৎসকরা বাচ্চার হার্ট রেট মেপে থাকেন এই সময় যদি দেখা যায় বাচ্চার হার্টের প্রতি মিনিটে ১৪০ বিট রয়েছে তাহলে মনে কোন সন্দেহ রাখবেন না যে ছেলে ব্যবসায় জন্ম নিতে চলেছে।
  • চুলের ঘনত্বে পরিবর্তন আসবেঃ মায়ের চুলের বৃদ্ধির হার দেখেও বলে দেওয়া সম্ভব ছেলে হতে চলেছে না মেয়ে। একাধিক গবেষণা করে দেখা গেছে মায়ের চুলের ঘনত্ব যদি স্বাভাবিকের থেকে বেশি হয় তাহলে কোন সন্দেহ থাকে না যে আসন্ন বাচ্চা ছেলে হতে চলেছে।
  • ক্ষুধা বেশি লাগাঃ গর্ভাবস্থায় খিদে কি খুব বেড়ে গেছে ছেলে সন্তান হওয়ার আগে এমনই সব লক্ষণের বহিঃপ্রকাশ ঘটে থাকে।
  • ঘুমানোর অবস্থানঃ কোন দিকে ফিরে ঘুমাচ্ছেন খেয়াল করুন। এই সময় মা এতটাই ক্লান্ত থাকেন যে শোয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ঘুম চলে আসে তার পক্ষে এটা বোঝা সম্ভবই হয় না যে কোন দিকে ফিরে তিনি ঘুমাচ্ছেন এক্ষেত্রে এই কাজটি করতে হবে স্বামীকে যদি দেখেন আপনার স্ত্রী বাদিকে ফিরে ঘুমাচ্ছে তাহলে আশা রাখতে পারেন যে আপনাদের ছেলেই হবে।
  • ওজন বৃদ্ধিঃ পেটে ছেলে সন্তান থাকলে গর্ভাবস্থায় মায়ের ওজন স্বাভাবিকের থেকে অনেক গুণ বেড়ে যায় এবং পেটটা একটু অতিরিক্ত মাত্রায় ফোলা মনে হয়।

জরায়ু পেটের কোন পাশে থাকে

জরায়ু কে গর্ভাশয়ও বলা হয়ে থাকে। অনেক মহিলারাই জানতে চেয়ে থাকে মহিলাদের জরায়ু পেটের কোন পাশে থাকে। জরায়ু হলো একটি ফাঁপা, নাশপাতি আকৃতির অঙ্গ যা একজন মহিলার তলপেটে মূত্রাশয় এবং মলদ্বারের মধ্যে অবস্থিত থাকে। অনেকেই বলে থাকে জরায়ু পেটের বাম দিকে অথবা ডানদিকে হয়ে থাকে বরং এটি ডান এবং বাম কোন দিকেই থাকে না বরং এটি অঙ্গ গুলোর মধ্যে আরো গভীরে অবস্থান করে।

জরায়ু পেটের কোন পাশে থাকে আরেকটু আপনাদের সহজ ভাষায় বলি। একজন মহিলার পেটের নিচে যে তলপেট থাকে এবং মুত্রাশয় অর্থাৎ মূত্রথলী এবং প্রসাবের রাস্তায় যেখানে দিয়ে শুরু হয়েছে ঠিক তার মাঝখানে গভীরে অঙ্গের মধ্যে জরায়ু অবস্থান করে। আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন এখন জরায়ু পেটের কোন পাশে থাকে এবং কোন পাশে অবস্থান করে।

বাচ্চা পেটের ভিতর কিভাবে থাকে

অনেক গর্ভবতী মহিলাদের মনে একটি কমন প্রশ্ন ঘুরপাক খেতে থাকে সেটি হচ্ছে বাচ্চা পেটের ভিতর কিভাবে থাকে। গর্ভাবস্থায় ৩৬ নাগাদ বেশিরভাগ শিশুই মায়ের জরায়ুতে এমন ভাবে অবস্থান করে যাতে তার মাথা নিচের দিকে জন্ম নালীর দিকে থাকে আর এটি প্রসবের জন্য স্বাভাবিক এবং নিরাপদ পজিশন। কিন্তু ব্রিচ পজিশনের ক্ষেত্রে শিশুর মাথা উপরের দিকে এবং তার নিম্নভাগ বা পা নিচের দিকে থাকে। আশা করি বাচ্চা পেটের ভিতর কিভাবে থাকে তা বুঝতে পেরেছেন।

গর্ভাবস্থায় বাচ্চার নড়াচড়া কখন বোঝা যায়

যারা প্রথমবারের মতন প্রেগন্যান্ট হয়েছেন কিংবা গর্ভাবস্থায় আছেন তাদের খুবই একটা উৎসাহের বা খুবই একটা জানার ইচ্ছা সেটা হচ্ছে কখন আমি বাচ্চা নড়াচড়ার টের পাব। যে প্রথম গর্ভধারণ করেছেন যিনি আগে কখনো মা হননি তাদের ক্ষেত্রে ৫ মাসের সময় বাচ্চার নড়াচড়া বোঝা যায়। প্রথম দিকে বাচ্চার নড়াচড়া টা খুব মৃদু নাড়াচড়া দিয়ে থাকে।
তারপর আস্তে আস্তে যতদিন যাবে তত বাচ্চার নড়াচড়া আরো ভালোভাবে বোঝা যাবে অর্থাৎ যখন ৭-৮ মাসের দিকে চলে যাবে তখন বাচ্চার বেশি নড়াচড়া টের পাবেন। আশা করি আপনি গর্ভাবস্থায় বাচ্চার নড়াচড়া কখন বোঝা যায় তা জানতে পেরেছেন এবং এবার থেকে আপনি মনে হয় বাচ্চার নড়াচড়ার অপেক্ষায় রইবেন শুভকামনা রইল।

গর্ভাবস্থায় বাচ্চা সম্পর্কে শেষ কথা

প্রিয়া পাঠক আজকের এই আর্টিকেলে গর্ভাবস্থায় বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে এবং ছেলে সন্তান হওয়ার লক্ষণ সমূহ গুলো আপনাদের বিস্তারিত জানিয়েছি আশা করি আপনি সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়েছেন। আপনার যদি মনে আরো কোন প্রশ্ন থেকে থাকে তাহলে নিচে কমেন্ট করে আমাদেরকে জানাতে ভুলবেন না।

আবারো বলে দিই সংক্ষিপ্ত আকারে গর্ভাবস্থায় বাচ্চা পেটের যেকোনো দিকে থাকতে পারে কারো বাম পাশে থাকতে পারে কারো ডান পাশে থাকতে পারে মূলত এটি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন পজিশনে বাচ্চারা থাকে তাই বলা বেশ মুশকিল যে গর্ভাবস্থায় বাচ্চা পেটের কোন পাশে থাকে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

Edu 360 BD নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url