কোন ভিটামিনের অভাবে হাতের চামড়া উঠে ও কারণ কি জানুন

আজকের এই আর্টিকালে হাতের চামড়া উঠার কারণ এবং কোন ভিটামিনের অভাবে হাতের চামড়া উঠে সে বিষয় নিয়ে আলোচনা করব। হাতের চামড়া বিভিন্ন কারণে উঠতে পারে আপনি যদি হাতে চামড়া উঠা সমস্যায় ভোগে থাকেন তাহলে আজকের এই আর্টিকেল পোস্টটি আপনার জন্য এই পোস্টে হাতের চামড়া উঠার কারণ ও কোন ভিটামিনের অভাবে হাতের চামড়া উঠে সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।
হাতের চামড়া উঠার কারণ - কোন ভিটামিনের অভাবে হাতের চামড়া উঠে
প্রায় মানুষেরই হাত ও পায়ের চামড়া উঠা সমস্যায় ভুগে থাকে আর এই হাত পায়ের চামড়া উঠলে দেখতে খুব বিচ্ছিরি লাগে। আপনি যদি হাতের চামড়া উঠার কারণ এবং কোন ভিটামিনের অভাবে হাতের চামড়া উঠে সে সম্পর্কে জানতে চান তাহলে আজকের এই আর্টিকেল পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। 

হাতের চামড়া ওঠা কি রোগ

আমরা সবাই জানি যে শীতকালে হাত ও পায়ের চামড়া উঠে এবং ফেটে যায় এটা খুবই সাধারণ তবে কারো যদি সারা বছরই হাত এবং পায়ের চামড়া উঠে তাহলে এটি রোগ বলা যেতে পারে কেননা সারা বছর সাত ভাই চামড়া ওঠা এটি একটি অস্বাভাবিক লক্ষণ আর এই হাতাই চামড়া উঠা রোগকে মেডিকেল ভাষায় কেরাটোলাইসিস এক্সফোলিয়াটিকা বলা হয়ে থাকে।

হাতের চামড়া উঠার কারণ

হাত ও পায়ের চামড়া উঠার প্রাথমিক কারণ হচ্ছে জেনেটিক বা বংশগত তাছাড়া ভিটামিনের অভাব এবং ত্বকের যত্নের অভাবের কারণেও হাতো পায়ে চামড়া উঠে যেতে পারে। হাত এবং পায়ের চামড়া উঠলে শরীর দেখতে বিচ্ছিরি লাগে এবং অন্যদের সামনেও যেতে লজ্জা লাগে। 


ব্যস্ত জীবন বাদ দিয়ে কিছু সময়ের জন্য আপনি যদি ত্বক এবং শরীরের যত্ন নেন তাহলে এই সমস্যা দূর হয়ে যেতে পারে। বিশেষ করে শীতকালে বা গরম ঋতুতে হাতে চামড়া উঠে থাকে আমরা সবাই জানি হাতের বা পায়ের চামড়া ওঠা একটি সাধারণ বিষয় তবে বছরের পর বছর ধরে যদি কারো হাতের চামড়া উঠা বাড়তে থাকে তাহলে এটি একটি রোগ বলা যেতে পারে। 

হাতের চামড়া ওঠা মেডিকেল ভাষায় এটিকে কেরাটোলাইসিস এক্সফোলিয়াটিকা বলা হয়ে থাকে। এবং সঠিক চিকিৎসা গ্রহণ করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ কেননা এটি দীর্ঘদিন থাকলে ত্বকের বিভিন্ন রকম ক্ষতি হতে পারে। আপনার যদি হাতের চামড়া উঠা সমস্যা থেকে থাকে তাহলে একজন ডাক্তারের পরামর্শ নিন কারণ একজন ডাক্তারি ভালো বলতে পারে হাতের চামড়া উঠার কারণ।

কোন ভিটামিনের অভাবে হাতের চামড়া উঠে

বিভিন্ন ভিটামিনের অভাবের কারণে আমাদের শরীরে অনেক রোগ দেখা যাই। আপনার যদি শীতকালে ছাড়াও সারা বছর হাতের চামড়া উঠে তাহলে এর পিছনে বিভিন্ন কারণ থাকতে পারে তার ভিতরে একটি হচ্ছে আপনার শরীরে ভিটামিনের অভাব। চলুন তাহলে কোন ভিটামিনের অভাবে হাতের চামড়া উঠে যাই তা জেনে নেওয়া যাক। 

সাধারণত শরীরে ভিটামিন ডি এর অভাবে হাতের চামড়া উঠে। ভিটামিন ডি আমাদের শরীরে হাড় এবং দাঁত মজবুত রাখতে সহায়তা করে। চিকিৎসকরা জানান যে শরীরে ভিটামিন ডি এর ঘাটতি দেখা দিলে হাত ও পায়ের চামড়া উঠে যাই।

এবং শরীরের ত্বকে জ্বালাপোড়া করে তাই আমাদের ত্বকের জন্য ভিটামিন ডি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও ভিটামিন সি, ভিটামিন ই এইসব ভিটামিনের অভাবেও হাতের চামড়া উঠতে পারে। আপনার শরীরে ভিটামিন ডি এর অভাব আছে কিনা তা জানতে হলে রক্ত পরীক্ষা।

হাতের চামড়া উঠা বন্ধ করার উপায়

ঋতু পরিবর্তনের সাথে সাথে অনেকেরই হাত এবং পায়ের চামড়া উঠে যায়। হাত ও পায়ের চামড়া উঠার কারণ বংশগত বা জেনেটিক বলা হয়ে থাকে যদিও এর মূল কারণ হচ্ছে শরীরে পুষ্টির অভাব এবং ত্বকের অযত্নর ফলে। 

হাত পায়ের চামড়া উঠলে শরীরের সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যায় যারা এই সমস্যাই ভুগছেন তাদের হাতের চামড়া উঠা বন্ধ করার বেশ কয়েকটি উপায় রয়েছে যার মাধ্যমে হাতের চামড়া ওঠা বন্ধ করতে পারবেন চলুন তাহলে হাতের চামড়া উঠা বন্ধ করার উপায়গুলো জেনে নেওয়া যাক।
  • আপনি আপনার খাদ্য তালিকায় সুষম খাদ্য রাখুন এর ফলে পুষ্টিহীনতার কারণে যদি চামড়া উঠে থাকে তাহলে ভালো হয়ে যাবে।
  • হালকা গরম পানির সঙ্গে লবণ এবং শ্যাম্পু মিশিয়ে হাতের তালুর পরিচর্যা করতে পারেন।
  • সাধারণত শুষ্ক ত্বকে বেশি চামড়া উঠে থাকে তাই প্রতিদিন রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে গ্লিসারিন ত্বকে ভালোভাবে লাগিয়ে ঘুমাতে যান ফলে চামড়া উঠা বন্ধ হয়ে যাবে।
  • সয়াবিন গুড়া হাত ও পায়ের যত্নে জন্য খুব উপকারী। সয়াবিন কিছুটা ভেজে নিয়ে এটাকে গুঁড়ো করে হাত ও পা ধুয়ে নিন দেখবেন চামড়া উঠা বন্ধ হয়ে যাবে।
  • গরম পানির মধ্যেও আধা চামচ শ্যাম্পু এবং একটু লবণ দিয়ে হাত ও পা ডুবিয়ে রাখুন ১০ থেকে ১৫ মিনিট এরপরে একটা ব্রাশ দিয়ে হাত-পা ঘষে নিন দেখবেন মরা চামড়া সব উঠে যাবে।
  • যারা গৃহিনী আছেন তাদের কাজ করার সময় হাত ও পা সব সময় ভেজা থাকে তাই কাজ করা শেষে হলে সাথে সাথেই হাত মুছে ফেলতে হবে এবং শুকিয়ে নিতে হবে। হাত-পা কখনোই ভেজা রাখা যাবে না।

    শীতকালে হাতের চামড়া উঠে কেন

    শীতকালে হাত ও পায়ের চামড়া উঠা বেশিরভাগ মানুষেরই হয়ে থাকে। এই হাতের চামড়া ওঠার কারণে কোন কিছু স্পর্শ করলে খারাপ লাগে এবং হাতের দিকে তাকালেও বিচ্ছিরি লাগে। হাত ও পায়ের চামড়া উঠার সবচেয়ে বড় কারণ হচ্ছে ছত্রাকের আক্রমণ। শরীরে প্রচুর পরিমাণে ছত্রাকের আক্রমণ হলে হাত ও পায়ের চামড়া উঠে যেতে পারে এছাড়াও ভিটামিন বি এর অভাবে হাত ও পায়ের চামড়া উঠতে পারে।

    হাত ও পায়ের চামড়া উঠার কারণে ত্বক খসখসে ও হালকা জ্বালাও করতে পারে। যারা স্যাতসেতে পরিবেশে বসবাস করে থাকেন এবং বেশি পানি লারাঘাটা করেন তাদের হাত ও পায়ের চামড়া উঠার সমস্যা বেশি দেখা যায়।

    এছাড়াও জেনেটিক এবং বংশগত কারণেও হাতের চামড়া উঠে যেতে পারে এই কারণে কিছু মানুষের প্রতিবছরে নির্দিষ্ট টাইমে হাত ও পায়ের চামড়া উঠতে দেখা যায়। বংশগত কারণে হাতের চামড়া উঠলে কোন চিকিৎসা কাজে দেয় না। চুলকানি ও এলার্জি বিভিন্ন রোগের প্রভাবে হঠাৎ চামড়া উঠতে পারে।

    হাতের চামড়া উঠার ক্রিম

    উপরে হাতের চামড়া উঠার কারণ এবং কোন ভিটামিনের অভাবে হাতের চামড়া উঠে বেশ কিছু পয়েন্ট নিয়ে আলোচনা করেছি। এখন আমরা জানবো হাতের চামড়া উঠার ক্রিম এবং হাতের চামড়া ওঠার ওষুধ সম্পর্কে নিচে হাতের চামড়া ওঠার কয়েকটি ক্রিমের নাম দেওয়া হল।

    হাতের চামড়া উঠার ক্রিম এর নাম

    1. Topical creams
    2. Clopidox Cream 1%

    ১. Topical creams

    এই ক্রিমটি সঠিক নিয়মে ব্যবহার করলে হাত ও পায়ের চামড়া উঠা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। এই ক্রিমটি বাজারে যেকোনো ফার্মেসি অথবা দোকানে পেয়ে যাবেন এই ক্রিমটির মূল্য ৭০ টাকা। এই ক্রিমটি দিনে ২ বার করে ১ মাস হাতের 

    এবং পায়ের তালুতে দিবেন তাহলে দেখবেন আপনার ও হাতের চামড়া উঠা বন্ধ হয়ে গেছে। ক্রিম ব্যবহার করার পরেও যদি সমস্যাটি থেকে যায়, তাহলে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা উচিত।

    ২. Clopidox Cream 1%

    এই ক্রিমটি আপনারা যে কোন দোকানে অথবা ফার্মেসিতে কিনতে পেয়ে যাবেন এই ক্রিমটির দাম হচ্ছে ১১০ টাকা। ওপরের নিয়ম অনুসারে দিনে ২বার করে ১ মাস ব্যবহার করবেন। দুইটি ক্রিম একসাথে হাত এবং পায়ের তালুতে লাগাবেন না প্রথমের ক্রিমটা একবার লাগালে পরের ক্রিমটা ১ঘন্টা পর লাগাবেন।আর যদি আপনার এই ক্রিমটি ব্যবহার করে হাতের চামড়া ওঠা বন্ধ না হয় তাহলে আপনি ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

    হাতের চামড়া কুচকে যাওয়া

    উপরের আলোচনায় আপনাদের শীতকালে হাতের চামড়া উঠে কেন এবং কোন ভিটামিনের অভাবে হাতের চামড়া সেটা জানিয়েছি এখন হাতের চামড়া কুচকে যাওয়া সম্পর্কে বিস্তারিত জানব। আমাদের মধ্যে অনেকে আছেন যাদের অল্প বয়সেই হাতে চামড়া কুঁচকে যাই যার ফলে হাত দেখতে খুবই বয়স্ক মানুষের মত লাগে 


    আপনিও যদি একই সমস্যায় ভুগে থাকেন তাহলে এই অংশে আপনাদের কিছু ঘরোয়া উপায় জানাবো যার মাধ্যমে হাতের চামড়া কুচকে যাওয়া থেকে মুক্তি পেতে পারেন।
    • হালকা করে পানিকে গরম করে নিন তারপর সেই হালকা গরম পানিতে হাত দুটি চুবিয়ে রাখুন আর যদি পারেন ৩ থেকে ৪ ফোটা অরেঞ্জ অসেনশিয়াল অয়েল গরম পানির ভিতর দিতে পারেন এর ফলে আপনার হাত নরম এবং কোমল হয়ে যাবে।
    • অলিভ অয়েল তেল এর সাথে সামান্য চিনি মিশিয়ে দুই হাত ম্যাসাজ করুন চিনি ভালোভাবে গলে না যাওয়া পর্যন্ত ম্যাসাজ করতে থাকুন তারপর চিনি গলে গেলে তা ধুয়ে ফেলুন তারপর অলিভ অয়েল তেল দুই হাতে ম্যাসাজ করে নিন।
    • সামান্য একটু পানির সাথে অল্প পরিমাণে ভিনেগার মিশিয়ে হাতে ম্যাসাজ করুন এরপর হাত মোজা পড়ে ১৫ মিনিট পর হাত ধুয়ে ফেলুন।
    • উজ্জ্বল ঝকঝকে হাত করতে চান তাহলে পাতি লেবুর আশ্রয় আপনাকে নিতেই হবে। ২ থেকে ৩ চামচ পাতি লেবুর রস এবং ২ চামচ মধু ও এক চামচ ব্রেকিং সোডা সবগুলো একসাথে মিশিয়ে হাতে লাগিয়ে রাখুন তারপর শুকিয়ে গেলে হাত ধুয়ে ফেলুন তারপর বুঝতে পারবেন কতই না উপকার।
    • আপনার হাতকে যদি সহজে নরম করতে চান তাহলে ৪ চামচ বেসন এবং ২ চামচ দই একসাথে মিশে ভালোভাবে পেস্ট তৈরি করে নিন তারপর আপনার হাতে ভালোভাবে লাগিয়ে নিন ১০ মিনিট রেখে হালকা গরম পানিতে হাতটি ধুয়ে ফেলুন এভাবে সপ্তাহে ২বার করে দেখুন ভালো উপকার পাবেন।

    শেষ কথা

    আজকের এই আর্টিকেলে আপনাদের সাথে হাতের চামড়া উঠার কারণ এবং কোন ভিটামিনের অভাবে হাতের চামড়া উঠে সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি এর পাশাপাশি হাতের চামড়া উঠার ক্রিম ও হাতের চামড়া উঠা বন্ধ করার উপায় সহ আরো অনেক বিষয়ে বিস্তারিত আপনাদের সাথে জানিয়েছি আশা করি আপনি পোস্টটি পড়েছেন এবং উপকৃত হয়েছেন।

    আপনার যদি কোন মতেই হাতের চামড়া উঠা ভালো না হয় তাহলে একজন চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করুন। আমাদের এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে অবশ্যই অন্যদের সাথে শেয়ার করে দেবেন এবং আপনার যদি হাতে চামড়া উঠা সম্পর্কে কোন প্রশ্ন থেকে থাকে তবে নিচে কমেন্ট করতে পারেন আর বিভিন্ন রকম তথ্য পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটিতে প্রতিনিয়ত চোখ রাখতে পারেন ধন্যবাদ।

    এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

    পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
    এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
    মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

    Edu 360 BD নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

    comment url