গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ মাত্র ২ মিনিটে

এই আর্টিকেলে গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বের করার নিয়ম এবং বিআরটিএ গাড়ির কাগজ চেক করার নিয়ম আপনাদের জানাবো। অনেকেই জানতে চেয়ে থাকেন কিভাবে গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বের করতে হয় বা আদেও এটা কি সম্ভব কিনা? বর্তমান সময়ে গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম যাচাই করা সম্ভব। 
গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ মাত্র ২ মিনিটে
বর্তমান সময়ে অনেক মানুষই আছেন যারা গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম যাচাই করতে চান তাদের জন্য আজকের এই আর্টিকেল পোস্টটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে। আপনি যদি গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ এবং বিআরটিএ গাড়ির কাগজ চেক করার নিয়ম সম্পর্কে জানতে চান তাহলে এই পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।
পোস্ট সূচিপত্রঃ 

ভূমিকা

আজকের এই আর্টিকেলে আমরা জানবো যে ধরুন আপনি নতুন একটি গাড়ি কিনতে চাচ্ছেন অথবা পুরাতন একটি গাড়ি কিনতে চাচ্ছেন এখন এখন বিক্রেতা বলছে গাড়ির কাগজপত্র ঠিক আছে কিন্তু আপনি চাচ্ছেন গাড়ির কাগজপত্র ঠিক আছে কিনা নিজে চোখে দেখতে অথবা আপনি কাউকে দিয়ে নতুন গাড়ি কিনেছেন সে নতুন গাড়ির সঠিক মত কাগজপত্র ঠিক করেছে কিনা তা যাচাই করতে।


আজকের এই আর্টিক্যাল পোস্টটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়ুন কারণ এই পোস্টটি গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকানা নাম যাচাই করা এবং বিআরটিএ গাড়ির কাগজ কিভাবে চেক করবেন সকল কিছু বিস্তারিত তুলে ধরার চেষ্টা করবো এই আর্টিকেলে।

গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ

আপনার কীভাবে অনলাইনে ঘরে বসে যে কোন মোটরযানের রেজিস্ট্রেশন নাম্বার দিয়ে আপনি মালিকের নাম বের করবেন যদি একটু সহজ ভাষায় বলি তাহলে যে কোন মোটরযানের যে রেজিস্ট্রেশন যার নামে করা আছে সেটি কিভাবে আপনারা ঘরে বসে বের করবেন সেই প্রসেসটা আজকের এই আর্টিকেলে আপনাদের জানাবো।

ধাপ ১. সর্বপ্রথম এই প্রসেসটি যদি আপনি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে করতে চান সে ক্ষেত্রে আপনি আপনার মোবাইল ফোনের গুগল ক্রোম ব্রাউজার অথবা অন্যান্য ব্রাউজার ওপেন করার পর কর্নার সেটিং এ গিয়ে "Desktop site" অপশনটি অন করে নিন আর যদি আপনার বাড়িতে কম্পিউটার থাকে তাহলে কোন অপশন অন করা লাগবে না।

তো প্রথমে আপনাকে মোবাইল অথবা কম্পিউটারে ব্রাউজারে সার্চ অপশনে গিয়ে টাইপ করতে হবে "bsp brta" লিখে সার্চ করবেন তারপর প্রথমে যে ওয়েবসাইটটি আসবে সেটিতে ঢুকবেন।

ধাপ ২. তো দ্বিতীয় স্টেপ হচ্ছে ওয়েবসাইটে ঢোকার পর আপনার যদি কোন অ্যাকাউন্ট না খোলা থাকে তাহলে কন্যারে একটি "নিবন্ধন" লিখা অপশন দেখতে পাবেন ওইখানে ক্লিক করে একটি ফরম দেখতে পাবেন সেখানে আপনার ভোটের আইডি কার্ড অনুযায়ী নাম, জন্ম তারিখ সবকিছু 

ভোটের আইডি কার্ড অনুযায়ী বসিয়ে একটি ফোন নাম্বার অথবা ইমেইল এবং একটি পাসওয়ার্ড নির্বাচন করে নিচে "নিবন্ধন করুন" অপশনে ক্লিক করবেন তাহলে আপনার অ্যাকাউন্ট খোলা হয়ে যাবে।

ধাপ ৩. তৃতীয় স্টেপ হচ্ছে প্রথমেই যে "নিবন্ধন" অপশন এ ক্লিক করেছেন তার পাশে "প্রবেশ করুন" লেখা আছে অপশনে ক্লিক করুন এবং আপনি যেই ইমেইল বা ফোন নাম্বার দিয়ে একাউন্ট খুলেছেন সেই ইমেইল বা ফোন নাম্বার পাসওয়ার্ড দিয়ে "login" অপশনে ক্লিক করুন। আপনাদের বোঝার সুবিধার্থে নিচে একটি সুবিধা হল

ধাপ ৪. লগইন করার পর একটি নতুন পেজে যাবেন তারপর অনেক ধরনের সেবা দেখতে পাবেন।আমরা যেহেতু মটর গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম যাচাই করব সেজন্য "মোটরযানের তথ্য" লেখা আছে ওইখানে ক্লিক করবেন তারপর নিচে "মোটরযান সংযুক্ত করুন" লেখা আছে ওইখানে ক্লিক করবেন তারপর একটি ফর্ম দেখতে পাবেন।

ধাপ ৫. ফর্ম কিছু তথ্য চাইবে সেই তথ্যগুলো সঠিকভাবে পূরণ করবেন এবং রেজিস্ট্রেশন নাম্বার এর শেষের ৪টি সংখ্যা অর্থাৎ আপনি ধরুন একটি মোটরসাইকেলের নাম্বার দিয়ে দেখতে চাচ্ছেন যে এই মোটরসাইকেলটি কার নামে রেজিস্ট্রেশন করার আছে। 

সেই ক্ষেত্রে আপনি যে মোটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন টা দেখতে চাচ্ছেন সেই মোটরসাইকেলের নাম্বারের শেষের ৪টি সংখ্যা বসিয়ে দিবেন খালি ঘরে। 

ধাপ ৬. উৎপাদনের বছর অর্থাৎ হচ্ছে যে ওই গাড়িটির যে সাল মডেল টা কোন সালে আসলে আসছে সেই সালটা দিতে হবে তো এই সালটি আপনি গাড়ির ট্যাক্স টোকেন কাগজে রয়েছে সেটিতে পেয়ে যাবেন।তারপরে ফাঁকা ঘরগুলো রয়েছে সেগুলি সঠিক তথ্য দিয়ে পূরণ করতে হবে 

তারপরে নিচে "অনুসন্ধান" লেখা রয়েছে ওই অপশনে ক্লিক করতে হবে তাহলে আপনি গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম খুব সহজেই দেখতে পারবেন এই হল গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম যাচাই করার নিয়ম বাংলাদেশ।

বিআরটিএ গাড়ির কাগজ চেক করার নিয়ম

পুরাতন মোটরসাইকেল কিনবেন অথবা একটি গাড়ি কিনবেন এখন এই সেকেন্ড হ্যান্ড গাড়ি বা মোটরসাইকেলটি ক্রয় করার পূর্বে কিন্তু অবশ্যই আপনার উচিত এই গাড়িটি কার নামে রয়েছে গাড়িটিতে কোন মামলা রয়েছে কিনা এই বিষয়গুলো যাচাই করে নেওয়া 

এখন আপনারা অনেকেই বলবেন আমি ডকুমেন্ট দেখেইতো গাড়িটি কিনব এখানে আর দ্বিতীয়বার কিভাবে যাচাই করব আপনি চাইলে এই কাজটি মাত্র ২ মিনিটে আপনার মোবাইল ফোন দিয়ে পড়ে ফেলতে পারেন। 

আপনার মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আপনি অনলাইন থেকে যাচাই করতে পারেন যেই গাড়িটি আপনি ক্রয় করতে যাচ্ছেন সেটার প্রকৃত মালিক কে কার নামে রেজিস্ট্রেশন করা এবং এই গাড়িটিতে কোন মামলা রয়েছে কিনা কিভাবে আপনারা কাজটি করতে পারেন এই আর্টিকালি সেটি দেখানো হবে চলুন তাহলে বেশি দেরি না করে বিআরটিএ গাড়ির কাগজ চেক করার নিয়ম জেনে নেওয়া যাক।

১. প্রথমে আপনার মোবাইল ফোন থেকে আপনার "google chrome" ব্রাউজারে চলে যাবেন তারপর সার্চ বারে গিয়ে টাইপ করবেন "bsp.brta.gov.bd" তারপর প্রথমে যে ওয়েবসাইটটি দেখতে পাবেন সেটিতে ঢুকবেন।

২. আপনার যদি একাউন্ট না খোলা থাকে তাহলে আপনার ভোটের আইডি কার্ডের নাম জন্ম তারিখ ফোন নাম্বার ইমেইল দিয়ে সেখানে একটি অ্যাকাউন্ট খুলে ফেলুন।

৩. অ্যাকাউন্ট করা হয়ে গেলে ইউজার নেম পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করে নিবেন একাউন্টে লগইন হয়ে গেলে আপনাদের সামনে এরকমই থাকে চলে আসবে এইখানে আপনি "মোটরযান তথ্য" রয়েছে এটাতে প্রেস করবেন এবং এইখানে দেখবেন কোন তথ্য পাওয়া যায়নি এরকমটি লেখা আসতে পারে আপনি এখান থেকে "মোটরযান সংযুক্ত করুন" এটাতে ক্লিক করবেন।
৪. তারপর আপনি দেখতে পারবেন ওইখানে আপনাকে মোটরযানের কিছু তথ্য দিতে বলা হচ্ছে। আপনি শুরুতেই যেটা দিবেন সেটা হচ্ছে আপনার মোটরযানের রেজিস্ট্রেশন নাম্বারের শেষের ৪ সংখ্যা তারমানে আপনার যে রেজিস্ট্রেশন রয়েছে নাম্বার প্লেটের ভিতরে সে রেজিস্ট্রেশন নাম্বারের শেষের ৪ সংখ্যাটা ওইখানে বসাবেন।


৫. তারপর এখানে গাড়িটির উৎপাদনের বছর দিবেন এখানে চেস নাম্বার এবং ইঞ্জিন নাম্বারটি দিয়ে দিবেন সকল তথ্য সঠিকভাবে দেওয়া হয়ে গেলে আপনি এখান থেকে "অনুসন্ধানে" ক্লিক করবেন অনুসন্ধানে ক্লিক করলে দেখতে পারবেন আপনার মোটরযানের তথ্যটি চলে আসবে। যেই গাড়িটি কিনতে চাচ্ছেন সেই গাড়ির প্রকৃত মালিকের নাম আপনি দেখতে পাবেন।

৬. এবার এই গাড়িটিতে কোন মামলার হয়েছে কিনা এটা যাচাই করার জন্য এই "সংযুক্ত করুন" এটাতে ক্লিক করবেন "সংযুক্ত করুন" এ ক্লিক করলে দেখতে পারবেন এটা সংযুক্ত হয়ে যাবে এবার আপনি আবারও "মোটরযান তথ্য" ওটাতে ক্লিক করবেন 

ওটাতে ক্লিক করলে আপনি দেখতে পারবেন পারবেন নিচে সেই গাড়ির তথ্যটি চলে আসছে আপনি এটাকে একটু ডান দিকে টান দিবেন এবং এইখানে দেখতে পাবেন মামলার তথ্য লেখা রয়েছে আপনি দেখুন লেখাতে ক্লিক করবেন।

৭. এবার আপনি দেখতে পারবেন এখানে কিছুক্ষণ সময় সার্চিং করবে এখানে সার্চিং পড়া পর্যন্ত আপনার অপেক্ষা করবেন অনেক সময় এখানে ৪ থেকে ৫ মিনিট সময় লাগে সুতরাং ধৈর্য ধরে অপেক্ষা করবেন 

তাহলেই দেখতে পারবেন যে এই গাড়িটিতে কোন মামলা রয়েছে কিনা যদি কোন মামলা থাকে তাহলে সেটা দেখাবে এবং আপনি দেখতে পারবেন কত টাকার মামলা খেয়েছে জরিমানা কত কি ডকুমেন্টস ইউজ করা হয়েছে এগুলো সকল কিছু আপনি এখানে দেখতে পারবেন।

গাড়ির নাম্বার প্লেট যাচাই 

অনেকে আছেন যারা নতুন গাড়ি বা পুরাতন গাড়ি কেনার পর গাড়ির নাম্বার প্লেট যাচাই করতে চান এবং অনলাইনে গাড়ির নাম্বার চেক করতে চান তাদের জন্য ইতিমধ্যেই গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ উক্ত আলোচনায় বিস্তারিত জানিয়ে দিয়েছি সেই একই নিয়মে আপনি আপনার গাড়ির নাম্বার প্লেট যাচাই করতে পারবেন খুব সহজে।

গাড়ির কাগজ চেক করার সফটওয়্যার

গাড়ির কাগজ চেক করার জন্য নির্দিষ্ট কোন সফটওয়্যার এখন পর্যন্ত রিলিজ করেনি তবে বিআরটিএ অফিশিয়াল ওয়েবসাইট রয়েছে যার মাধ্যমে আপনি আপনার গাড়ির নাম্বার দিয়ে গাড়ির কাগজপত্র খুব সহজেই বাড়িতে বসে যাচাই করতে পারবেন যা ইতিমধ্যে আপনাদেরকে জানিয়ে দিয়েছি কিভাবে গাড়ি অথবা মোটরসাইকেলের কাগজ চেক করবেন কোন সফটওয়্যার ছাড়াই।

গাড়ির কাগজ করতে কত টাকা লাগে

বিআরটিএ ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনার গাড়ির অথবা মোটর গাড়ির সিসি এবং ওজন দিয়ে সাবমিট করলেই দেখতে পারবেন আপনার কত টাকা লাগবে কাগজ করতে এবং আপনাদের ধারণা দেওয়ার জন্য বাইকের কাগজ করতে কত টাকা লাগতে পারে তা নিচে দেওয়া হল।
  • ১০০ সিসি এবং ৯০ কেজির নিচে ওজনের মটর গাড়ির ১০ বছর মেয়াদে কাগজ করার জন্য ১২৩৯০ টাকা লাগে।
  • ১০০ সিসি এবং ৯০ কেজির উপরে ওজনের মোটর গাড়ির ১০ বছরের মেয়াদে ১৭৩৯০ টাকা লাগে।
  • ৯০ কেজি ওজন এবং ১০০ থেকে ১৫০ সিসি এর মধ্যে মোটর গাড়ির ১০ বছরে মেয়াদে কাগজ করতে ১৩৭৯০ টাকা লাগে।
  • ৯০ কেজি বেশি এবং ১০০ থেকে ১৫০ সিসির মধ্যে মোটর গাড়ির ১০ বছর মেয়াদে কাগজ করতে ১৮৭৯০ টাকা লাগে। প্রত্যেকটা মোটর গাড়ি র কাগজ করার জন্য ১৫% ভ্যাট প্রযোজ্য।

আমাদের শেষ কথা

আপনি যদি পুরাতন গাড়ি অথবা বাইক কিনেন তাহলে খুব সহজে বাড়িতে বসে অনলাইনে বিআরটিএ অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে সঠিক ইনফরমেশন দিয়ে ফর্মটি ফিলাপ করলেই দেখতে পাবেন গাড়ির মালিকের নাম এবং গাড়িতে কয়টি মামলা রয়েছে সবকিছু দেখতে পাবেন। 

আজকের এই আর্টিকালে আপনাদের সাথে গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ এবং বিআরটিএ গাড়ির কাগজ চেক করার নিয়ম জানিয়েছি এর পাশাপাশি গাড়ির কাগজ করতে কত টাকা লাগে সেটাও আপনাদেরকে জানিয়েছি আশা করি আপনি সবকিছু বুঝতে পেরেছেন।

যদি গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম যাচাই করতে আপনার কোন অসুবিধা বা প্রশ্ন থেকে থাকে এই আর্টিকেল সম্পর্কিত তাহলে নিচে কমেন্ট করতে পারেন আমরা আপনাদেরকে সাহায্য করবো। বিভিন্ন রকম তথ্য পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি প্রতিনিয়ত ভিজিট করতে পারেন ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

Edu 360 BD নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url