পোল্যান্ড ভিসা সৌদি আরবে | পোল্যান্ড কাজের বেতন কত জানুন

আপনি কি পোল্যান্ড যেতে চান? অনেকদিন যাবত যাওয়ার চেষ্টা করছেন কিন্তু যেতে পারছেন না? কেউ পরামর্শ বা সাহায্য করার নেই বুঝতে পারছেন না কিভাবে পোল্যান্ড যাওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করবেন তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি আপনার জন্য এই আর্টিকেলে পোল্যান্ড ভিসা সৌদি আরবে এবং পোল্যান্ড কাজের বেতন কত, যেতে কত টাকা লাগে সকল বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব।
পোল্যান্ড ভিসা সৌদি আরবে | পোল্যান্ড কাজের বেতন কত জানুন
আজকের এই আর্টিকেলে আমরা আলোচনা করব কিভাবে আপনি সঠিক এবং বৈধ উপায় সৌদি আরব বা মধ্যপ্রাচর থেকে পোল্যান্ড যেতে পারবেন এবং পোল্যান্ড এর নিয়ম অনুসারে সেখানে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে পারবেন। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক পোল্যান্ড ভিসা সৌদি আরবে এবং পোল্যান্ড কাজের বেতন কত, পোল্যান্ডে বাংলাদেশিদের অবস্থা কেমন এছাড়া পোল্যান্ড যেতে কত টাকা লাগে ইত্যাদি নানা বিষয়ে। 

পোল্যান্ড কেমন দেশ

বন্ধুরা ইউরোপ মহাদেশের মধ্যে স্থলের একটি রাষ্ট্র এবং ঐতিহাসিক অঞ্চল পোল্যান্ড এটি সরকারিভাবে পোল্যান্ড প্রজাতন্ত্র নামে পরিচিত এর রাজধানীর নাম হচ্ছে ওয়ার্‌শ। দেশটির উত্তরে রয়েছে সুপরিচিত প্রান্তিক সাগর সমৃদ্ধ ইতিহাস আর চোখ জুড়ানো প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য দেশটি সকলের কাছে  সুপরিচিত। পোল্যান্ডের আয়তন প্রায় ৩ লক্ষ ১২ হাজার ৬৭৯ বর্গ কিলোমিটার। '


২০১৮ সালে একটি হিসাব অনুযায়ী পোল্যান্ডের জনসংখ্যা ৩ কোটি ৮১ লাখেরও অধিক। পোল্যান্ড ইউরোপের নবম বৃহত্তম দেশ। পোল্যান্ডের ৯৮% মানুষই পোলিও ভাষায় কথা বলে আর বাকি ২% জার্মানি, বেলারুশ এবং রোমানিয়া ভাষায় কথা বলে। এবং পোল্যান্ডের ৮৭% মানুষকে খ্রিস্টান ধর্ম পালন করে এছাড়া পোলিও সহ অন্যান্য কিছু গোষ্ঠী ধর্ম পালন করে। 

পোল্যান্ডের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা হচ্ছে ফুটবল ও ভলিবল। পোল্যান্ডের মানুষ একটু বেশি বন্ধু সলাভ হয়ে থাকে এবং পোল্যান্ডে কাজকে খুব মূল্যায়ন করা হয় অর্থাৎ একজন কর্মচারীকে অনেক সম্মানিত করা হয়।

পোল্যান্ড ভিসা সৌদি আরবে

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা সৌদি আরব থেকে পোল্যান্ড যেতে চান কিন্তু যাওয়ার নিয়ম না জানায় অনেকেই যেতে পারেন না তাই এই অংশে কিভাবে আপনি সৌদি আরব বা মধ্যপ্রাচর থেকে পোল্যান্ড যাবেন সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। বৈধভাবে যদি আপনি সৌদি আরব বা মধ্যপ্রাচর থেকে পোল্যান্ড যেতে চান তাহলে তিনটি উপায় যেতে পারবেন তা হলোঃ-
  • টুরিস্ট ভিসা
  • ওয়ার্ক পারমিট ভিসা
  • স্টুডেন্ট ভিসা
১. টুরিস্ট ভিসাঃ কোন দেশে ভ্রমণের অনুমতি দিয়ে যে ভিসা দেওয়া হয় সেটাই টুরিস্ট ভিসা। আপনি যখন কোন দেশে টুরিস্ট ভিসা পাবেন তখন সে দেশে আপনি ৯০ দিন অথবা তিন মাস বৈধভাবে থাকতে পারবেন। আপনি যদি পোল্যান্ড যেতে চান এবং পোল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসা না পান তাহলে নরওয়ে যেতে পারবেন তারপর নরওয়ে থেকে পোল্যান্ডে যেতে পারবেন।

২. ওয়ার্ক পারমিট ভিসাঃ কোন দেশে কাজ করার জন্য যে ভিসা প্রদান করা হয় তাকেই ওয়ার্ক পারমিট ভিসা বলা হয়ে থাকে। ওয়ার্ক পারমিট ভিসা কোন দেশে যাওয়া বা থাকার জন্য বেশি জনপ্রিয়। অনেক উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশ তাদের তাদের কাজের জন্য অন্য দেশ থেকে শ্রমিক নিয়ে থাকে আপনি যদি এরকম কোন দেশের ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পান তাহলে সেখানে বৈধভাবে যেতে পারবেন।

সৌদি আরব বা মধ্যপ্রাচের কোন দেশ থেকে সরাসরি ওয়ার্ক পারমিট ভিসা দেওয়া হয় না। আপনি যদি কোনভাবে ইউরোপের কোন দেশে চাকরি পেয়ে যান তবে সেই দেশে চলে যাবেন পরবর্তীতে সেই দেশ থেকে পোল্যান্ডে যেতে পারবেন।

৩. স্টুডেন্ট ভিসাঃ সর্বশেষ যে উপায়ে আপনি পোল্যান্ডে বৈধভাবে যেতে পারবেন সেটি হচ্ছে স্টুডেন্ট ভিসা। আপনি যদি পড়ালেখা করার জন্য কোন দেশে যেতে চান আর সে দেশ যদি আপনাকে ভিসা দেয় তবে সেটা হবে স্টুডেন্ট ভিসা অর্থাৎ আপনি উচ্চশিক্ষার জন্য যদি পোল্যান্ডের কোন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষাবৃত্তে নিয়ে পড়ালেখা করার সুযোগ পান তবে আপনি স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে পোল্যান্ডে বৈধভাবে যেতে পারবেন।

৪. সতর্কতাঃ বৈধভাবে পোল্যান্ডে যেতে হলে কিছু বিষয়ে আপনাকে অবশ্যই সতর্ক থাকতে হবে যেমনঃ এই তিনটি উপায় ছাড়া অন্য কোন উপায় পোল্যান্ড যাওয়ার চেষ্টা করবেন না। এবং কাউকে টাকা দিয়ে কোন কাজ করাতে যাবেন না এছাড়া আপনি যদি পোল্যান্ড ব্যতীত অন্য কোন দেশে যাওয়ার সুযোগ পান অবশ্যই চলে যাবেন পরবর্তীতে সেখান থেকে পোল্যান্ড যেতে পারবেন।

পোল্যান্ড কাজের বেতন কত

অনেক বাঙালি ভাইয়েরা জানতে চেয়ে থাকেন যে পোল্যান্ডে গেলে কত টাকা কাজের বেতন পাওয়া যাবে, কোন কাজের কত বেতন ইত্যাদি সম্পর্কে তাই এই অংশে পোল্যান্ডে কাজের বেতন কত সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। পোল্যান্ডে অনেক ধরনের কাজ করার সুযোগ রয়েছে। এককটি কাজের একেক রকম বেতন। মূলত আপনার কাজের উপর নির্ভর করবে আপনার বেতন। 


তবে আপনি যেকোনোই কাজ করেন না কেন পোল্যান্ডে আপনার সর্বনিম্ন বেতন হবে ১ লক্ষ টাকা। যেহেতু পোল্যান্ডের বেশিরভাগ মানুষই কাবাব ব্যবসার সাথে জড়িত তাই আপনি যদি পোল্যান্ডে এসে কাবাব এর দোকানে চাকরি করেন আর যদি আপনার কাজের প্রতি ভালো অভিজ্ঞতা থাকে এবং মালিকের সাথে ভালো সম্পর্ক তৈরি হয় তাহলে আপনার মাসিক বেতন হবে ১ লক্ষ টাকা থেকে ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত।

এছাড়া পোল্যান্ডের মেডিকেল সেক্টরে যারা কাজ করে তাদের বেতন ৪ থেকে ১০ হাজার যতি পর্যন্ত হয়ে থাকে যা বাংলাদেশী টাকাই এক লক্ষ্য টাকা থেকে দেড় লক্ষ টাকা পর্যন্ত। এবং পোল্যান্ডে যারা সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কাজ করে তাদের বেতন ১০ থেকে ৪০ হাজার পর্যন্ত যতি হয়ে থাকে। আপনি যদি কাজের জন্য অথবা চাকরির জন্য পোল্যান্ডে আসেন তাহলে আপনার কাজের দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতার দেখে বেতন প্রদান করা হবে আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

পোল্যান্ড যেতে কত টাকা লাগে

পোল্যান্ডে যেতে কত টাকা লাগে সেটি সম্পূর্ণ নির্ভর করে আপনার ভিসা ক্যাটাগরির ওপর সাধারণত পোল্যান্ডে যেতে ৪ থেকে ৫ লক্ষ টাকা লেগে থাকে সব মিলিয়ে। আপনি যদি পোল্যান্ড এ ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় যান তাহলে আপনার খরচ হবে ৪ থেকে ৫ লক্ষ টাকা আর যদি আপনার আত্মীয়-স্বজন পোল্যান্ডে থেকে থাকে এবং সে যদি ভিসা পাঠিয়ে দেয় তাহলে আপনার আরো কম টাকা খরচ হবে।

আর আপনি যদি পোল্যান্ডে স্টুডেন্ট ভিসায় যান তাহলে আপনার সর্বোচ্চ এক লক্ষ টাকা খরচ হবে। আর আপনি যদি পোল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসায় যান তাহলে আপনার খরচ হবে দেড় থেকে ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত। আর আপনি পোল্যান্ডে গেলে ২৬ টি দেশে ভ্রমণ করতে পারবেন কোন ভিসা ছাড়াই তবে আপনাকে এর জন্য অবশ্যই সেনজেন ভিসা নিতে হবে।

পোল্যান্ডে বাংলাদেশিদের অবস্থা

বাংলাদেশের প্রচুর মানুষ পোল্যান্ডে এসেছে এবং বিশেষ করে অনেকেই সাপ্লাই কোম্পানিতে চলে এসেছেন এবং সাপ্লাই কোম্পানিতে আসার কারণে অনেকে একটু কাজ নিয়ে ঝামেলায় আছেন। সাপ্লাই কোম্পানি হচ্ছে আপনাকে কাজের জন্য নিয়ে আসার পর তারা আপনাকে বলবে কোম্পানিতে কাজ নেই অথবা কাজ দেখে নাও বা খুজে নাও ইত্যাদি তাই পোল্যান্ডে যে কোম্পানিতে কাজ করার জন্য আসেন না কেন ভালোভাবে যাচাই করে আসবেন।


এছাড়া পোল্যান্ডে বাংলাদেশীদের জন্য অনেক ভালো ভালো কাজ রয়েছে কিন্তু সে কাজগুলো করতে হলে আপনাকে পোলিও ভাষা জানা লাগবে এবং কাজের ওপর দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা থাকা লাগবে। আর পোল্যান্ডে বাংলাদেশীদের অবস্থা কিছুটা ভালো কেননা আগে বছরের তুলনায় এখন পোল্যান্ডে কাজের বেতন কিছুটা বাড়ানো হয়েছে।

পোল্যান্ড কি সেনজেন দেশ

অনেকেই জানতে চেয়ে থাকেন পোল্যান্ড কি সেনজেনভুক্ত দেশ উত্তর হচ্ছে জি হ্যাঁ। পোল্যান্ড একটি সেনজেনভুক্ত দেশ যে দেশে আসলে আপনি ইউরোপের ২৭ টি দেশে কোন ভিসা ছাড়াই যেতে পারবেন। তবে আপনাকে এটি করার জন্য একটি সেনজেন ভিসা নিয়ে আসতে হবে আর এই সেনজেন ভিসা নিয়ে আপনি সর্বোচ্চ ৯০ দিন পর্যন্ত দেশে থাকতে পারবেন।

পোল্যান্ডের আবহাওয়া কেমন

পোল্যান্ডে আবহাওয়ার কথা বলতে গেলে শীতের সময় মাইনাস ১ ডিগ্রি হতে ১০ ডিগ্রি পর্যন্ত নেমে যায় এক কথায় পোল্যান্ড শীত প্রধান দেশ বলা যায়। শুধু পোল্যান্ড না বরং ইউরোপের প্রতিটা দেশেই শীত প্রধান দেশ। এই পোল্যান্ডে আসলে আপনাকে শীতের সাথে মানিয়ে নিতে হবে যা বাংলাদেশী শীতের তুলনায় কিছুই না।

উপসংহার

প্রিয় পাঠক আপনি যদি সৌদি আরব থেকে পোল্যান্ডে যেতে চান তাহলে আপনাকে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা অথবা টুরিস্ট ভিসা এবং স্টুডেন্ট ভিসার মাধ্যমে যেতে হবে এছাড়া আপনি অন্য কোন ভিসায় বা অন্য কোন উপায় যেতে পারবেন না। আজকের এই আর্টিকেলে পোল্যান্ড ভিসা সৌদি আরবে এবং পোল্যান্ড কাজের বেতন কত, যেতে কত টাকা লাগে ইত্যাদি আরো অনেক বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। 

আশা করি আজকের এই আর্টিকেলটি আপনি সম্পূর্ণ পড়েছেন এই পোস্টটি যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তাহলে অন্যদের সাথে শেয়ার করে দিবেন আর আপনার যদি কোন প্রশ্ন থেকে থাকে তাহলে নিচে কমেন্ট করে আমাদেরকে জানাতে পারেন ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

Edu 360 BD নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url