মুখে এলার্জি দূর করার ক্রিম, সাবান এবং ঘরোয়া উপায়

প্রিয় পাঠক, আজকের এই পোস্টে মুখে এলার্জি দূর করার ক্রিম ও মুখে এলার্জি দূর করার ঘরোয়া উপায়গুলো সম্পর্কে আপনাদের জানাবো। মুখে এলার্জি হলে মুখের আকৃতি খুবই বাজে দেখাই তাই অনেকেই চিন্তিত হয়ে পড়েন চিন্তার কোন কারণ নেই এই আর্টিকেল পোস্টটি পড়লে মুখে এলার্জি দূর করার ক্রিম ও ঘরোয়া উপায় গুলো জানতে পারবেন।

মুখে এলার্জি ছোট বড় প্রায় সব মানুষেরই হয়ে থাকে তাই আপনিও যদি এই সমস্যায় ভুগে থাকেন তাহলে মুখে এলার্জি দূর করার ক্রিম এবং মুখে এলার্জি দূর করার ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে জানা দরকার।তাই এলার্জি দূর করার ক্রিম এবং ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে জানতে হলে আজকের এই আর্টিকেল পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। 

    মুখে এলার্জি কেন হয়

    এলার্জি আসলে কি? এলার্জি খুবই সাধারণ একটি রোগ এটি আমাদের শরীরের কোন খাবার খাওয়ার বা বস্তুর প্রতি যে প্রতিক্রিয়া হয় সেটাই মূলত অ্যালার্জি। শিশুদের সাধারণত বেশি পরিমাণে এলার্জি হয়ে থাকে তবে বয়স বাড়ার সাথে সাথে এলার্জি ভালো হয়ে যায়। 

    ওয়ার্ল্ড এলার্জি অর্গানাইজেশন জার্নাল এক প্রতিবেদনে জানাই ২০১৮ সালে বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ৩০ ভাগ মানুষ এলার্জি সংক্রান্ত নানা রোগে ভুগে থাকেন। প্রত্যেকটা মানুষের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা থাকে একে বলা হয় ইমিউনি সিস্টেম। 


    আমাদের শরীরে যখন এই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায় বা আমাদের প্রতি ক্ষতিকর নয় এমন সব জিনিসের প্রতি প্রতিক্রিয়া দেখাতে শুরু করে তখনই এলার্জি হয় অর্থাৎ আমরা যে খাবার খাই বা আমরা যে বস্তুর সংস্পর্শে আসি সেটা ক্ষতিকর কিনা সেটা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ধরতে পারেনা এসব খাবার বা বস্তুর প্রতি এই ধরনের প্রতিক্রিয়া দেখাতে শুরু করে যা আসলে এনার্জি।

    মুখে এলার্জি দূর করার ক্রিম

    অনেক সময় দেখা যায় যে ছেলে এবং মেয়ে উভয়ের ক্ষেত্রে মুখ প্রচুর পরিমাণে চুলকায় মুখের ডান সাইড এবং বাম সাইড বিভিন্ন জায়গায় চুলকা এবং শুধু চুলকায় না বরং মাঝেমধ্যে ফুলে যায় এবং লাল হয়ে যায় এই সমস্যাটা অধিকাংশ অল্প বয়সে মেয়েদের এবং ছেলেদের ক্ষেত্রে বেশি দেখা যায় এবং ৩০ থেকে ৪০ বছর বয়সের মহিলাদেরও এই সমস্যাটি প্রচুর পরিমাণে দেখা যায়। 

    তো এই সমস্যার কারণে অনেকেই বিভিন্ন চিকিৎসা অথবা ট্যাবলেট খেয়ে থাকে তবুও মুখে এলার্জি ভালো হয় না তো আজকে আপনাদের মুখে এলার্জি দূর করার ক্রিম দেখাবো যেগুলি ব্যবহার করে খুবই অল্প সময়ে মুখে এলার্জি সমস্যা সমাধান করতে পারবেন। মুখের এলার্জি দূর করার ক্রিম এর নাম সহ ব্যবহারবিধি নিচে উল্লেখ করলাম।

    Bet CL - এটি একমিক কোম্পানির প্রোডাক্ট, এই ক্রিমটার দাম হচ্ছে মাত্র ৩০ টাকা যে কোন ফার্মেসিতে কিনতে পেয়ে যাবেন। এই ক্রিমটা আপনারা প্রতিদিন রাতের বেলা ব্যবহার করলে বেশি উপকার পাবেন।রাতে ঘুমানোর আগে মুখটা ভালোভাবে পানি দিয়ে ধুয়ে নিয়ে মুছে নিবেন।

    তারপর মুখে যে সমস্ত জায়গায় এলার্জি আছে সেই জায়গায় এই ক্রিমটা ভালোভাবে মাখিয়ে দিবেন। যদি আপনি প্রতিদিন রাতে ১বার করে ব্যবহার করেন তাহলে আপনার সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে মাত্র ১ থেকে ২ টা ক্রিম ব্যবহার করলে এবং আপনার মুখ ফ্রেশ হয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ।

    মুখে এলার্জির লক্ষণ

    মুখে এলার্জি কেন হয়ে থাকে এবং এলার্জি দূর করার সম্পর্কে আপনাদের জানালাম এখন মুখে এলার্জির লক্ষণ অর্থাৎ অ্যালার্জি হলে কি কি উপসর্গ দেখা দিবে সে সম্পর্কে আপনাদের জানাবো। আমাদের দেশে এলার্জিতে ভোগে এমন মানুষের সংখ্যা কিন্তু কম নয়। এলার্জি হলে হাঁচি থেকে শুরু করে চুলকানি এবং শ্বাসকষ্ট পর্যন্ত হতে পারে। 

    কারো কারো ক্ষেত্রে এই এলার্জি অল্প অসুবিধা দেখা দেয় আবার কারো কারো ক্ষেত্রে সারা জীবনকে কষ্টের করে তোলে। যে বস্তুর প্রতি আপনার এলার্জি আছে সাধারণত সেই বস্তুর সংস্পর্শে অর্থাৎ কাছে গেলে কয়েক মিনিটের মধ্যেই আপনার শরীরে এলার্জি প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে তবে এটি কয়েক ঘণ্টারও হতে পারে। 

    বেশিরভাগ এলার্জি মৃদু এবং নিয়ন্ত্রণে থাকে তবে মাঝে মাঝে এলার্জির কারণে মারাত্মক উপসর্গ দেখা দিতে পারে একে বলা হয় এনাফ্লেক্স সিক্স। এছাড়াও এলার্জির কারণে যেসব উপসর্গকারী দেখা যায় তা হলঃ 
    • হাঁচি
    • চুলকানি
    • সর্দি
    • বন্ধনাক
    • শরীর বা ত্বকে লাল লাল হয়ে ফুলে যাওয়া
    • শ্বাস নেওয়ার সময় বুকে শব্দ হওয়া বা বুক ভারি হয়ে যাওয়া।
    • চোখ, ঠোঁট, জিব্বা এবং মুখ ফুলে যাওয়া।
    • ত্বক লাল হয়ে কেটে যাওয়া বা শুকিয়ে যাওয়া
    • বমি বমি ভাব 
    • পেট ব্যথা অথবা পেট কামড়ানো
    • ডায়রিয়া
    • চোখ থেকে পানি পড়া অথবা চোখ চুলকানো
    • ঘুম ঘুম ভাব হওয়া
    • ত্বক এবং ঠোট নীল হয়ে যাওয়া
    উপরের উল্লেখিত যে লক্ষণ গুলি দেখতে পাচ্ছেন এগুলোই মূলত এলার্জির লক্ষণ তবে কিছু সাধারণ লক্ষণ রয়েছে যেগুলি কয়েক মিনিটের জন্য হতে পারে আবার কিছু মারাত্মক লক্ষণও রয়েছে যেগুলি দেখা দিলে আপনার মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে তাই এসব বিষয়ে সতর্ক অবলম্বন করতে হবে।

    মুখে এলার্জি দূর করার ঘরোয়া উপায়

    মুখে অ্যালার্জি হলে স্বস্তি নেই। আমাদের সৌন্দর্য প্রকাশ পায় চেহারার মাধ্যমে। যাদের মুখে এলার্জি রয়েছে তাদের জন্য কিছু ঘরোয়া উপায় রয়েছে যেগুলি অনুসরণ করলে মুখের এলার্জি দূর করা সম্ভব যেমন তুলসী পাতা, নারিকেল তেল, অ্যালোভেরা, নিমপাতা ইত্যাদি ব্যবহার করে মুখের এলার্জি ভালো করতে পারেন চলুন তাহলে মুখে এলার্জি দূর করার ঘরোয়া উপায় গুলো বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।


    ১.তুলসী পাতা
    তুলসী পাতায় রয়েছে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি যা ত্বকের চুলকানি দূর করে। এক মুঠো তুলসী পাতা নিন তারপর পাতাগুলিকে ভালোভাবে ধুয়ে নিন তারপর পাতাগুলো বেটে পেস্ট তৈরি করে ফেলুন। তারপর তুলসী পাতার তৈরি পেস্টগুলি আপনার এলার্জি আক্রান্ত স্থানে লাগিয়ে ৩০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন এটি আপনারা দিনে কয়েকবার লাগাতে পারেন এতে অনেক স্বস্তি পাবেন।

    ২.নারকেল তেল
    বড়দের অথবা শিশুদের ত্বকে এলার্জি হলে নিরাপদ উপায় হচ্ছে নারিকেল তেল। ১ চামচ নারিকেল তেল হালকা করে গরম করে নিন তারপর সেই গরম করা তেলটি এলার্জি আক্রান্ত স্থানে ৩০ মিনিট পর্যন্ত লাগিয়ে রাখুন তারপর হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে শুকিয়ে নিন। যতদিন এলার্জি দূর না হচ্ছে ততদিন এটি দিনে ২ থেকে ৩ বার ব্যবহার করুন।

    ৩. নিম পাতা
    নিমপাতা অনেক উপকারী একটি ওষুধ বলা হয়ে থাকে যা ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ সৃষ্টি এলার্জি দূর করতে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। নিমের পাতা রাতে পানিতে ভিজিয়ে রাখুন সকালে উঠে সেই নিমপাতা গুলি বেটে নিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন তারপর নিম পাতার পেস্ট করি এলার্জি আক্রান্ত চুলকানি জায়গাগুলিতে লাগিয়ে দিন দেখবেন চুলকানি ভালো হয়ে যাবে।

    ৪.অ্যালোভেরা
    অ্যালোভেরা জীবাণ্য প্রতিরোধ করতে অনেক সহায়তা করে এর পাশাপাশি এন্টি ব্যাকটেরিয়াল ত্বকে জ্বালাপোড়া কমাতে সহায়তা করে। অ্যালোভেরা গাছের কয়েকটি পাতাকে বেটে রস বের করুন তারপর সেই অ্যালোভেরার পাতার রস এলার্জি আক্রান্ত স্থানে লাগান।

    ৫. ঠান্ডা পানি
    ঠান্ডা পানি ত্বকে জ্বালাপোড়া এবং এলার্জি দূর করতে সহায়তা করে তাই চেষ্টা করুন প্রতিদিন গোসল করার সময় ঠান্ডা পানি দিয়ে গোসল করার কেননা এই ঠান্ডা পানি দিয়ে গোসল করলে ত্বকে জ্বালাপোড়া থেকে রেহাই পাবেন।

    ৬. লবণ পানি
    প্রথমে এক গ্লাস পানি নিন তারপর তিন চামচ লবণ সেই পানির ভিতর দিয়ে দিন তারপর সেই পানিটিকে ভালোভাবে ফুটিয়ে নিন তারপর পানিটা ঠান্ডা হয়ে গেলে এক টুকরো তুলো নিয়ে সেই পানিতে ভিজিয়ে আপনার চোখে লাগাতে পারেন এতে যদি কোন ময়লা থাকে তাহলে উঠে যাবে এবং এলার্জির কারণে চোখ চুলকানো এবং জ্বালাপোড়া থেকে রেহাই পাবেন।

    এলার্জি দূর করার সাবান

    এলার্জি দূর করতে অনেকেই বিভিন্ন কোম্পানির সাবান ব্যবহার করে থাকেন এটি মধ্যে উচিত নয় আপনার যদি এলার্জি হয়ে থাকে তাহলে সাবান ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন কেননা যে কোন সাবান ব্যবহার করার ফলে আপনার এলার্জি আরও বাড়ি দিতে পারে তাই সাবানের পরিবর্তে আপনি নিজোডার শ্যাম্পু ব্যবহার করতে পারেন এই শ্যাম্পু আপনি পুরো শরীরে ব্যবহার করতে পারেন।

    কি কি খাবারে এলার্জি আছে

    যাদের এলার্জি রয়েছে তারা অনেকেই জানতে চেয়ে থাকেন কি কি খাবারে এলার্জি আছে অর্থাৎ কোন খাবার খেলে এলার্জি প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হতে পারে। বাদাম, ডিম, দুধ, সয়াবিন, চিংড়ি, মুগের ডাল, গম ইত্যাদি আরো অনেক খাবার রয়েছে যেগুলোতে এলার্জি রয়েছে। কিছু খাবার রয়েছে যেগুলো খেলে মানুষের এলার্জি হতে পারে তবে সবার ক্ষেত্রে না চলুন তাহলে কি কি খাবারে এলার্জি আছে সেগুলি জেনে নেওয়া যাক। 

    ১.বাদাম
    বাদাম খেতে সবারই ভালো লাগে এই বিভিন্ন ধরনের মিষ্টি এবং এক মুঠো বাদামে অনেক উপকারিতা রয়েছে তবে অনেকেরই পেস্তা, চীনা বাদাম, আখরোট, কাজু এবং ব্রাজিল বাদামে এলার্জি রয়েছে তবে কোন বাদামে আপনার এলার্জি হবে সেটা বলা মুশকিল আপনাকে সেটা যাচাই করে নিতে হবে।

    ৩.দুধ 
    শরীরে প্রতিদিনের পুষ্টির অভাব দূর করার জন্য দুধের ওপর নির্ভরশীল হতেই হবে। কারো কারো দুধ খেলে এলার্জি সমস্যা দেখা দেয়। বিশেষ করে দেশী গরুর দুধে এই সমস্যা দেখা যায়। যেসব বাচ্চার বয়স ৩ বছরের কম তাদেরকে গরুর দুধ খাওয়ালে এলার্জি হতে পারে।

    ৪.ডিম
    দুধের মতই ঠিক একই ডিম একটি পুষ্টিকর খাবার আমাদের শরীরের জন্য। আপনি কি জানেন? ডিম খেলেও কিছু কিছু মানুষের এলার্জি দেখা দিতে পারে। দুধের মতই ডিম খাওয়ার কারণে অধিকাংশই শিশুই এলার্জিতে ভোগে। ডিমের চারিদিকে সাদা অংশটিতে সাধারণত এলার্জি থাকে। যদি কারো ডিম খেলে এলার্জি সমস্যা দেখা দেয় তাহলে ডিম খাওয়া থেকে দূরে থাকুন।

    ৫. ফলমূল এবং শাকসবজি
    অনেক ফলমূল এবং শাক সবজি রয়েছে যেগুলি খেলে অনেকেরই এলার্জি সমস্যা সৃষ্টি হয় যেমন বেগুন, কলা, টমেটো, গাজর ইত্যাদি ফলমূল এবং শাকসবজিতে এলার্জি রয়েছে।

    ৬.সয়া
    সয়া প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য এলার্জি সমস্যা সৃষ্টি না করলেও এটি শিশুদের সয়া খাবারে এলার্জি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। যেমন সয়াবিন, সয়া দুধ, সয়া মাংসে এলার্জি থাকে। 

    ৭.মাছ 
    অনেকেরই দেখা যায় কোন নির্দিষ্ট মাছ খেলে এলার্জি সমস্যা সৃষ্টি হয় আবার অনেকেরই টুনা, স্যালমন ইত্যাদি সামুদ্রিক মাছ খেলে এলার্জি হয়ে থাকে।

    ৮.গম
    ঘুম থেকে তৈরি করা হয় গমের আটা সেই আটা থেকে আমরা অনেকে ধরনের খাবার তৈরি করে খেয়ে থাকি বিশেষ করে রুটি। এই গমের আটা প্রাপ্তবয়স্কদের এলার্জি সমস্যা সৃষ্টি না করলেও এটি কিছু কিছু শিশুদের ক্ষেত্রে এলার্জি দেখা দিতে পারে তাই কোন শিশু যদি গমে এলার্জি থাকে তাহলে অন্যান্য শস্য খাবার গুলিতেও এলার্জি হতে পারে।

    এলার্জি ব্রণ দূর করার উপায়

    এলার্জি ব্রন হলে মুখ দাগ এবং গর্ত হয়ে যায়। মুখে এলার্জি হওয়ার ফলে অনেকের মুখে ফুসকুড়ি এবং লাল ভাব তৈরি হয় যার কারণে মুখ দেখতে খুব বিচ্ছিরি লাগে। যারা এ সকল সমস্যায় ভুগছেন তাদের জন্য এলার্জি ব্রন দূর করার উপায় রয়েছে এই উপায় গুলি ব্যবহার করে আপনি খুব সহজেই মুখের ব্রণ দূর করতে পারবেন চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক সেই উপায় গুলো কি কি।


    ১. লেবু ও হলুদ
    প্রথমে ১ চামচ লেবুর রস এবং ১ চামচ হলুদের গুঁড়া ভালোভাবে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন তারপর আপনার মুখের ব্রণ স্থানগুলোতে সমানভাবে ২০ মিনিট পর্যন্ত লাগিয়ে রাখুন তারপর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন এভাবে একটানা দুই সপ্তাহ লাগান দেখবেন আপনার মুখের এলার্জী ব্রণ দূর হয়ে গেছে। তবে এটি মুখে লাগিয়ে চুলার সামনে যাবেন না।

    ২. ডিম ও লেবুর রস
    ১ চামচ লেবুর রসের ভিতর একটি টিমের সাদা অংশ দিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন তারপর এটি মুখে ব্রনের জায়গা গুলোতে সমানভাবে লাগিয়ে রাখুন তারপর এটি শুকিয়ে গেলে মুখ ভালোভাবে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। একমাস প্রতি সপ্তাহে তিন থেকে চারবার লাগালে আপনার মুখের গর্ত এবং এলার্জি ব্রণ দূর হয়ে যাবে এর পাশাপাশি আপনার মুখ উজ্জ্বল দেখতে লাগবে।

    ৩. গোলাপ জল, টক দই, এবং লেবুর খোসা
    প্রথমে ১ চামচ গোলাপ জল ও ১ চামচ টক দই এবং ১ চামচ লেবুর খোসা বাটা ভালোভাবে মিশিয়ে নিন তারপর আপনার মুখে ব্রোন জায়গা গুলোতে ভালোভাবে লাগান এটি সম্পূর্ণ শুকিয়ে যাওয়ার পর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এভাবে একটানা এক মাস ব্যবহার করলে এটি আপনার ত্বককে নরম করে তুলবে এবং ব্রণ, দাগ দূর করবে।

    শেষ কথা

    আজকের এই আর্টিকেলে আমরা মুখে এলার্জি দূর করার ক্রিম এবং মুখে এলার্জি দূর করার ঘরোয়া উপায়গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করলাম এর পাশাপাশি আপনাদের জানিয়েছি কি কি খাবারে এলার্জি আছে ও এলার্জি ব্রণ দূর করার উপায় সম্পর্কে আশা করি আপনি পোস্টটি পড়েছেন এবং উপকৃত হয়েছেন। 

    পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে অবশ্যই অন্যদের সাথে শেয়ার করে দিবেন এবং আপনার যদি মুখে এলার্জি সংক্রান্ত কোন প্রশ্ন থেকে থাকে তাহলে কমেন্ট করে আমাদেরকে জানাতে পারেন। আর এরকম বিভিন্ন তথ্য পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটিতে প্রতিনিয়ত চোখ রাখতে পারেন ধন্যবাদ।

    এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

    পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
    এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
    মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

    Edu 360 BD নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

    comment url